Tepantor

পাত্রের সই জালিয়াতি করে বিয়ে পড়ালেন কাজী

১২ এপ্রিল, ২০২২ : ৭:২০ অপরাহ্ণ ৩৮৬
ছবি: কাজী ফুরকান উদ্দিন

তেপা্ন্তর রিপোর্ট: পাত্রের সই জালিয়াতি করে এক প্রবাসীর বিয়ে পড়ালেন কাজী। পরবর্তীতে বিষয়টি জানতে পেরে বিয়ের বিষয়টি অস্বীকার করেছেন পাত্র। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার নোয়াগাও গ্রামের ঘটনা এটি। অভিযুক্ত কাজীর নাম ফুরকান উদ্দিন। তিনি নোয়াগাও গ্রামের বাসিন্দা।

Tepantor

বিয়ের কাবিননামা ও পাত্রের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, ০৫,০৮,২০১৭ তারিখে সদর উপজেলার বিরামপুর গ্রামের মুসা মিয়ার ছেলে আরিফ মিয়ার সাথে বিয়ে হয় নবীনগর উপজেলার নাড়ই গ্রামের তাজুল ইসলামের মেয়ে সালমা আক্তারের। বিয়েটি পড়ান নোয়াগাও গ্রামের কাজী ফুরকান। বিয়ের সময় পাত্র আরিফ বিদেশ ছিলেন এবং বর্তমানেও তিনি প্রবাসেই আছেন।

প্রবাসী আরিফ ও তার ভাই আরমিন অভিযোগ করে বলেন, পাত্রী সালমা আক্তার, কাজী ফুরকান, তাজুল ইসলাম, আবুল ও ফরিদ নামে ব্যক্তিগণ একটি চক্র। তারা বিভিন্ন সময় মানুষকে বিপদে ফেলে টাকা হাতিয়ে নেয়। সালমা আক্তারের মোট ৩ বিয়ে হয়েছে, এর মধ্যে ২ বিয়েই কাজী ফুরকানের দ্বারা হয়েছে।

আরমিন বলেন, আমার ভাই আরিফ বিদেশ থাকা অবস্থায় তার সই নকল করে বিয়ের কাবিন নামা তৈরি করা হয়েছে। কাবিনে যেই সই আছে তা আমার ভাই করেনি। খেয়াল করলে দেখা যায়, পুড়ো কাবিন যেই হাতে লিখা হয়েছে পাত্রের সই একই হাতের লিখা। তাই সহজেই জালিয়াতিটা বুঝা যায়। ওই চক্রটি এভাবেই মানুষকে বিয়ে করিয়ে বিভিন্ন কৌশলে ও ভয়-ভীতি দেখিয়ে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে কাজী ফুরকান উদ্দিন ও তার ভাই বোরহান উদ্দিন সই জালিয়াতির বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, দুই পক্ষের অনুরোধেই আমরা কাবিনে নিজেরা পাত্রের সই করেছি। বিষয়টি নিয়ে যখন সমস্যা তৈরি হয়েছে তখন আমরা গ্রামে সালিশ করে মিমাংসা করা হয়েছে। তা স্বত্বেও পাত্র পক্ষ কেন অভিযোগ করে বেড়াচ্ছে তা বোধগম্য নয়।

এ বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা কাজী সমিতির সভাপতি কাজী মাওলানা ইয়াহইয়া মাসউদ বলেন, সই জালিয়াতির বিষয়টি আমি শুনেছি, তবে কাগজপত্র আমি এখনো দেখিনি, দেখে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

Tepantor

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।