Tepantor

ডাক হেকে টিকিট কালোবাজার

৩০ এপ্রিল, ২০২২ : ৭:২৭ অপরাহ্ণ ১৯৫

তেপান্তর রিপোর্ট: ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলওয়ে স্টেশনে ট্রেনের টিকিট কালোজারে বিক্রি হওয়া নতুন কিছু নয়। কয়দিন পর পর প্রশাসনের পক্ষ থেকে অল্প-স্বল্প অভিযান চললেও অভিযানের মাত্রা পর্যাপ্ত না হওয়ায় ও আটকৃতদের উপযুক্ত শাস্তি না হওয়ায় তারা জেল থেকে বের হয়েই আবার টিকিট কালোবাজারিতে যুক্ত হচ্ছে। তবে এবারের ঈদে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার টিকিট কালোবাজারিদের সাহস আরো বেড়েছে। তারা এবার টিকিট কালোবাজারি করছে ডেকে ডেকে। বাসের টিকিট যেভাবে বিক্রি করা হয় তারা সেভাবেই ট্রেনের টিকিট বিক্রি করছে ঈদে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলওয়ে স্টেশনে জিআরপি পুলিশ, রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনী ও স্টেশনের কর্মকর্তারা থেকেও কালোবাজারিরা কিভাবে এই কাজ করছে তা একটি প্রশ্ন।

Tepantor

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মুরসালিন আহমেদ চৌধুরী বলেন, আমি ২৬ এপ্রিল টিকিট কাটতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলওয়ে স্টেশনে গিয়েছিলাম। কাউন্টারে যাওয়ার পর আমাকে বলা হলো জাতীয় পরিচয়পত্র ছাড়া টিকিট দেওয়া হবেনা। আমি সেখান থেকে একটু সরে গিয়ে দাড়ালাম। তখন দেখলাম, টিকিট কালোবাজারিরা কাউন্টার থেকে অবাধে টিকিট নিয়ে যাচ্ছে এবং তাদের কোন জাতীয় পরিচয় পত্রেরও প্রয়োজন পড়ছেনা। পরে এটা নিয়ে আমি কথা বলায় কাউন্টারের কর্মচারীরা সবাই একসাথে হয়ে গেছে। তখন দেখা গেলো, টিকিট কালোবাজারিরা ঢাকা ও চট্রগ্রামের টিকিট ডেকে ডেকে বিক্রি করছে। এছাড়াও সহকারী স্টেশন মাস্টার শোয়েব নিজে টিকিট কালোবাজারের সাথে জরিত। তার কাছ থেকেও মানুষ বেশি দাম দিয়ে টিকিট কিনতে পারে। মূলত, শোয়েব নিজে যদি সৎ থাকতো তাহলে ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলওয়ে স্টেশনে এত টিকিট কালেবাজারি হতোনা।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে টিকিট ফেরত দিতে আসা এক ব্যক্তি জানান, আমি স্টেশনের কাউন্টারে যাওয়ার পর তারা আমাকে বলেন, আমাদের এখানে দিলে দাম কম পাবেন, যদি পূর্ণ দাম পেতে চান তাহলে টিকিট কালোবাজারিদের কাছে বিক্রি করে দিন।

এ বিষয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলওয়ে স্টেশনের সহকারী স্টেশন মাস্টার শোয়েব আহমেদের বক্তব্য জানতে তার মোবাইল ফোনে কল করে কোন সাড়া পাওয়া যায়নি।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলওয়ে স্টেশনে টিকিট কালোবাজারে বিক্রি হওয়া নতুন কিছু নয়। কয়দিন পর পর এসবের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা হয়, কিন্তু দিন শেষ সব অভিযানই ব্যর্থ হয়। কারন, অভিযানের পরও কালোবাজারি চলতে থাকে। ফলে এর কোন স্থায়ী সমাধান হচ্ছেনা। কারা কারা এসবের সাথে জরিত তা আগে চিহ্নিত করে যদি তাদের গ্রেফতারে অভিযান পরিচালনা করা হয় এবং অভিযানের মাত্রা যদি আরো বাড়ানো হয় তাহলে এর একটা সুফল পাওয়া যাবে বলে মনে করেন অনেকে।

Tepantor

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।