Tepantor

ব্রাহ্মণবাড়িয়া ছাত্রলীগের বিতর্কিত এক’শ জনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে না কেন্দ্র

২৬ জুলাই, ২০২২ : ১:৩৫ অপরাহ্ণ ৩৬০

তেপান্তর রিপোর্ট: ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ছাত্রলীগের বিতর্কিত প্রায় একশত জনের নাম জমা দেয়া হয়েছে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় দপ্তরে। প্রায় তিন মাস আগে পাচ মাসের যাচাই-বাছাই শেষে চূড়ান্ত প্রায় একশত জনের নাম জমা দিয়েছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক দায়িত্ব প্রাপ্ত কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি আলিমুল হক এবং উপ-পাঠাগার সম্পাদক এম আর মুকুল ইসলাম,কিন্তু বিতর্কিতদের বিরুদ্ধে এখনো কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি কেন্দ্র।

Tepantor

বিতর্কিতদের চূড়ান্ত তালিকা জমা দেয়ার ব্যাপারে তেপান্তরকে নিশ্চিত করেন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি আলিমুল হক। তিনি বলেন, “আমরা দ্বায়ীত্বপ্রাপ্ত দুজন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিতর্কিত দের তালিকা করে আমাদের সেন্ট্রাল প্রেসিডেন্ট এবং সেক্রেটারির কাছে অনেক অনেক আগেই জমা দিয়েছি। এখন এব্যাপারে ব্যবস্থা নিবে কেন্দ্রীয় সংসদ, এব্যাপারে বিস্তারিত জানতে আমাদের সভাপতি-সেক্রেটারির সাথে যোগাযোগ করতে পারেন।”

বিতর্কিত একশত জনের তালিকা কখন জমা দেয়া হয়েছে জানতে চাইলে কেন্দ্রের উপ-পাঠাগার সম্পাদক মুকুল বলেন, “আমরা প্রায় তিন মাস আগে রিপোর্ট জমা দিয়েছি। সিলেটের বন্যাসহ বিভিন্ন সাংগঠনিক কার্যক্রমের কারণে বিতর্কিতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে দেরি হচ্ছে”।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য এর ঘনিষ্ঠ এক কেন্দ্রীয় নেতা তেপান্তরকে বলেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিতর্কিতদের সাথে দাদার ঘনিষ্ঠ জনদের সুসম্পর্ক রয়েছে, যাদের মধ্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কেন্দ্রীয় নেতাও আছে, তারা বিভিন্ন সময় তাদের কাছ থেকে বিশেষ সুবিধা নিয়ে থাকে। যার কারণে দাদাকে তারা বিভিন্ন অজুহাতে ব্যবস্থা নিতে সময়ক্ষেপণ করাচ্ছে। তবে আমি যতটুকু জানি খুব শীঘ্রই চূড়ান্ত স্বীদ্ধান্ত আসবে”।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জেলা ছাত্রলীগের সাবেক একজন নেতা তেপান্তরকে বলেন, “কেন্দ্র বলেন আর জেলা সবাই অর্থপ্রেমী। তারা আদর্শ বলেন আর গঠনতন্ত্র বলেন কোনকিছুরই তোয়াক্কা করে না। পূর্ণাঙ্গ কমিটি করতে কোটি টাকার লেনদেন করার অভিযোগ আছে তাদের বিরুদ্ধে”।

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় এবং সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য এর সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করেও যোগাযোগ করা যায়নি।

উল্লেখ্য, গত বছর অক্টোবর মাসের ৩০ তারিখ জেলা ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়,যেখানে অযোগ্য,অছাত্র এবং বিতর্কিতদের স্থান দেয়ায় ব্যাপক সমালোচনা শুরু হয়,এমনকি জেলা আওয়ামী লীগও এবিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে।

 

এমসি/এসকে

 

Tepantor

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।