Tepantor

নৌকাকে চ্যালেঞ্জ করছে স্বতন্ত্রের কাচি

২ জানুয়ারি, ২০২৪ : ৯:২৩ অপরাহ্ণ

তেপান্তর রিপোর্ট: চুরি,ছিনতাই, চাদাবাজি,ভূমিদস্যুতা তথা সন্ত্রাস নির্মূলে ব্যাপক অবদান রাখায় সদর বিজয়নগরে ব্যাপক উন্নয়ন কর্মকাণ্ড সংগঠিত করায় নন্দিত হওয়া সংসদ সদস্য মুক্তাদির চৌধুরীর নৌকা প্রতীককে আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চ্যালেঞ্জ জানাচ্ছে স্বতন্ত্র প্রার্থী ফিরোজুর রহমান ওলিও’র কাচি মার্কা। দেশের অন্যতম বৃহত্তম রাজনৈতিক দল বিএনপি’র নির্বাচন বর্জন জেলায় আওয়ামী লীগের হেভিওয়েট প্রার্থী মুক্তাদির চৌধুরীকে অনেকটাই এগিয়ে রেখেছে। তবে সদর  উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদ থেকে পদত্যাগ করে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সদর বিজয়নগর আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়া ফিরোজুর রহমান ওলিও ব্যাপক হারে প্রচার প্রচারণা চালাচ্ছেন,জনসমর্থন আদায়ের চেষ্টা করছেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ (সদর ও বিজয়নগর) আসনে সর্বাধিক ৮ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর আসনে আওয়ামী লীগের হেভিওয়েট প্রার্থী র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরীর সঙ্গে লড়ছেন ৭ জন। সর্বোচ্চ প্রার্থী এই আসনে। আওয়ামী লীগ মনোনীত র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী (নৌকা) ছাড়া অন্য প্রতিদ্বন্দ্বীরা হলেন স্বতন্ত্র ফিরোজুর রহমান ওলিও (কাঁচি), বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের সৈয়দ মো. নূরে আজম (মোমবাতি), জাসদের আবদুর রহমান খান ওমর (মশাল), বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের মুজিবুর রহমান হামিদী (বটগাছ), ন্যাশনাল পিপলস পার্টির সৈয়দ মাহমুদুল হক আক্কাছ (আম), বাংলাদেশ সুপ্রিম পার্টির সোহেল মোল্লা (একতারা) ও বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আন্দোলনের জামাল রানা (নোঙ্গর)।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার ১২ টি ওয়ার্ডের ৮ টি ওয়ার্ডে এগিয়ে রয়েছে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী র আ ম উবায়দুল মুক্তাদির চৌধুরী। পৌরসভার ২,৬,৭,ও ১২ নং ওয়ার্ডে নৌকা প্রতীককে চ্যালেঞ্জ দিচ্ছে স্বতন্ত্র প্রার্থী ফিরোজুর রহমান ওলিও’র কাচি মার্কা। দক্ষিণ পৈরতলা,পশ্চিম মেড্ডা,ভাদুঘর, আমিনপুর ও গোকর্ণের দিকে কাচি মার্কা শক্ত অবস্থান নিয়েছে। নৌকা প্রতীক নিয়ে পৌর মেয়র নির্বাচিত হওয়া নায়ার কবিরের স্বামীর বাড়ি তথা পৈরতলার মন্ত্রী বাড়ি কাচি মার্কার প্রতি ঝুকছে, যে কারণে নৌকা প্রতীকের ঘাটি বলে পরিচিত ৬ নং ওয়ার্ডে পিছিয়ে রয়েছে।

বাসুদেব ইউনিয়নের কড্ডা,চান্দি,ও বরিশল গ্রামে প্বার্শবর্তী সংসদীয় আসনের বর্তমান সংসদ সদস্যের কিছু অনুসারীর মদদে নৌকা প্রতীক কিছুটা পিছিয়ে রয়েছে। তবে পুরো ইউনিয়নের ফলাফলে নৌকা এগিয়ে থাকবে।

মাছিহাতা ইউনিয়নে আরও একজন প্রার্থী থাকলেও নৌকা প্রতীকের জয় প্রায় নিশ্চিত।

সুলতানপুর ইউনিয়ন থেকে স্বতন্ত্র প্রার্থী ফিরোজুর রহমান প্রতিদ্বন্দ্বিতা করায় নৌকা প্রতীককে কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি করেছে। দীর্ঘ প্রায় পচিশ বছর সুলতানপুর  ইউনিয়নের চেয়ারম্যান থাকাকালীন মহিউদ্দিন নগর,বিরামপুর,শিলাউড়,ও হাবলা উচ্চ গ্রামে আশানুরূপ কোন উন্নয়ন কর্মকাণ্ড করতে পারেনি বলে এ চারটি গ্রামে ফিরোজুর রহমানের কাচি মার্কা পরাজিত হতে পারে।

রামরাইল ইউনিয়নের মুহাম্মদপুর,উলচা পাড়া, ও বিজেশ্বর গ্রামে নৌকা প্রতীক চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হবে। বাকি গ্রাম গুলোতে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী এগিয়ে রয়েছেন।

সাদেকপুর ইউনিয়ন ও নাটাই দক্ষিণ ইউনিয়নে নৌকা প্রতীককে কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হবে।

নাটাই (উত্তর) ইউনিয়নের বিরাসার, নাটাই,ক্ষুদ্র ব্রাহ্মণবাড়িয়া, থলিয়ারা,রাজঘর গ্রামে নৌকা প্রতীক এগিয়ে রয়েছে। ইউনিয়নের অন্যতম বৃহত্তম গ্রাম ভাটপাড়ায় কাচি মার্কা এগিয়ে রয়েছে।

সুহিলপুর ইউনিয়নের সিংহভাগ গ্রামে নৌকা প্রতীক এগিয়ে রয়েছে। সিকিভাগ ভোট কাচি মার্কা ছিনিয়ে নিবে।

মজলিশপুর ইউনিয়ন,বুধল ইউনিয়ন,ও তালশহর (পূর্ব) ইউনিয়নে নৌকা প্রতীককে কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি করছে কাচি মার্কা।

বিজয়নগর উপজেলার বুধন্তী,চান্দুরা,পাহাড়পুর, ও ইছাপুরা ইউনিয়নে নৌকা প্রতীককে কঠিন চ্যালেঞ্জে ফেলবে কাচি মার্কা। বাকি সিঙ্গারবিল, পত্তন, চম্পকনগর,বিষ্ণুপুর,চর ইসলামপুর,ও হরষপুর ইউনিয়নে কয়েকটি গ্রাম বাদে পুরো ইউনিয়নে নৌকা এগিয়ে রয়েছে।

পত্তন ইউনিয়নের কৃষক ইদ্রিস মিয়া বলেন, সংগ্রামের পর এক রবিউল সাব ছাড়া আমরা পূব অঞ্চলের মানুষের জন্য কেউ কোন কাজ করেনি। আমরা যদি রবিউল সাবরে ভোট না দেয় তাইলে বেইমানি হবে।

জেলা সদরের সুলতান ইউনিয়নের মিজান বলেন, ফিরোজুর রহমান ইউপি চেয়ারম্যান থাকতে ২০ থেকে ২৫ টি মার্ডার হয়েছে। তিনি মহিউদ্দিন নগর, বিরামপুর,শিলাউড় গ্রামে কোন উন্নয়ন মূলক কাজ করেননি। গ্রাম আদালত পরিচালনায় তিনি ব্যর্থ ছিলেন। তার পক্ষে সংসদ সদস্য পদ সামলানো সম্ভব না। আমরা রবিউল সাহেবের নৌকায় ভোট দিবো,তিনি আমাদের জন্য অনেক কিছু করেছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জেলা শহরের জগত বাজারের এক ব্যবসায়ী বলেন, আজকে প্রায় ত্রিশ বছর আমি জগৎ বাজারে ব্যবসা করতেছি। এশহরে অনেক জোর জুলুম দেখছি,মুক্তাদির সাহেব আসার পর এসব একদম নাই বললেই চলে।

 

Tepantor

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।