Tepantor

বেআইনি প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় সরাইল থানার ভিতর কিশোরকে নির্যাতনের অভিযোগ

৪ জুলাই, ২০২৪ : ৬:০২ অপরাহ্ণ

তেপান্তর রিপোর্ট: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল থানায় একটি কিশোরকে ধরে নিয়ে গিয়ে নির্যাতন করার অভিযোগ উঠেছে এক এএসআই এর বিরুদ্ধে। ওই এএসআইয়ের নাম রুবেল আখন, তিনি বর্তমানে সরাইল থানায় কর্মরত আছেন। অভিযোগকারী ওই কিশোরের নাম ইমন (২২), তিনি সরাইলের কুট্রাপাড়া এলাকার জাফর মিয়ার ছেলে। ইমন পেশায় ট্রাকের হেল্পার। বুধবার (০৩ জুলাই) দুপুর দুইটার সময় সরাইল থানার ভিতর এই ঘটনা ঘটে। থানা থেকে বের হয়ে ইমন মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ সুপার ও রেঞ্জ ডিআইজি’র কাছে অভিযোগ করেছেন বলে জানিয়েছেন ইমন। এঘটনার পর ইমন প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন। তবে এএসআই রুবেল প্রতিবেদকের কাছে তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ নাকচ করেছেন।

ইমন প্রতিবেদকের কাছে অভিযোগ করে বলেন, আমি দুপুরে সরাইলের অন্নদা স্কুলের গেইটের সাথে মাদার্স টেলিকমে যাই নিজের মোবাইল সার্ভিসিং করাতে৷ ওই সময় এএসআই রুবেল সিভিল ড্রেসে একা এসে আমাকে জোর করে রিক্সায় তুলে থানায় নিয়ে যায়। থানার পিছনের দিক দিয়ে ঢুকানো হয়। সেখানে খাবারের কেন্টিনের কাছে নিয়ে গিয়ে কোন কথা না বলেই হঠাৎ আমাকে মারধর শুরু করে। প্রথমে দুই কানে ও গালে জোরে থাপ্পর মারে ফলে এক কানে আমি কিছু শুনিনা। পরে বিজয়গরের এক লোকের ট্রাক কোন ভাবে আমি সরাইলে এনে দিতে বলেন রুবেল। সেই ট্রাকে রুবেল নিজে মাদক দিয়ে ট্রাকটিকে আটক করবে বলে জানায়। আমি এতে রাজি না হওয়ায় তিনি ক্ষেপে গিয়ে নির্যাতনের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়। আমাকে তার হাতের লাঠির মাথা দিয়ে বুকে জোরে জোরে ফার দিয়েছে তারপর টেবিলে আমাকে শুইয়ে বুকের মধ্যে তার হাতের কনুই দিয়ে জোরে জোরে আঘাত করেছে। এরপরও আমি রাজি না হওয়ায় আমাকে দিয়ে ক্যামেরার সামনে এক লোকের বিরুদ্ধে নেতিবাচক বক্তব্য দিতে বাধ্য করেছে। এসবের পর আমাকে ছেড়ে দেওয়ার সময় আমাকে কেন থানায় নিয়ে যাওয়া হয়েছিলো এবিষয়ে তিনি তার মোবাইল ফোনের ক্যামেরায় আমাকে মিথ্যা বক্তব্য দিতে বাধ্য করেছে। তিনি আমাকে বাধ্য করেছিল এটা বলতে যে, আমি থানায় আমার একটি মোবাইল নিয়ে গিয়েছিলাম মোবাইলটি বৈধ নাকি অবৈধ এটা জানতে।

এবিষয়ে এএসআই রুবেল আখনের বক্তব্য জানতে প্রতিবেদক তার সাথে ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি প্রথমে ইমনকে চিনেন না বলে জানান। পরে অবশ্য চিনেছে জানিয়ে তার বিরুদ্ধে সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তিনি বলে এমন কোন ঘটনা ঘটেনি ইমনের সাথে, তবে ইমন পুলিশ ও মাদক ব্যবসায়ীদের সোর্স।
ইমনের বিরুদ্ধে কোন মামলা আছে কিনা জানতে চাইলে এএসআই রুবেল জানান, ইমনের বিরুদ্ধে কোন মামলা নেই।

 

Tepantor

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।