শহরে সক্রিয় অজ্ঞান পার্টি,পুলিশের ভূমিকা কি?

১৭ ডিসেম্বর, ২০১৯ : ৫:০৮ অপরাহ্ণ ৪৫৯

সর্বশেষ ভাদুঘরে অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়া ব্যাক্তি, ছবি: তেপান্তর

আসাদুজ্জামান আসাদ: ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরে সক্রিয় রয়েছে “অজ্ঞান পার্টি” চক্র। বিভিন্ন সময় শহরের রাস্তা-ঘাটে সাধারণ মানুষদের অজ্ঞান করে সব কিছু নিয়ে যাচ্ছে তারা। সামান্য মাদকসহ মাঝে মধ্যেই কিছু মাদকসেবী বা মাদক ব্যাবসায়ী পুলিশের কাছে দরা পড়লেও অজ্ঞান পার্টির কোন সদস্য দরা পড়তে দেখা যায়না। অথচ কিছুদিন পর পর অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পরে স্বর্বস্ব হারাচ্ছেন সাধারণ মানুষ। সর্বশেষ মঙ্গলবার (১৭ ডিসেম্বর) শহরের ভাদুঘর এলাকায় এক বয়স্ক লোককে অজ্ঞান করে স্বর্বস্ব লুটে নেয় এই চক্র। তিনি বর্তমানে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। অজ্ঞান থাকায় তার নাম পরিচয় জানা যায়নি। অজ্ঞান অবস্থায় অন্য লোকেরা তাকে হাসপাতালে ভর্তি করে দেন।
এর আগে ১৬ ডিসেম্বর শহরের সমবায় মার্কেটের এক ব্যাবসায়ী অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়ে স্বর্বস্ব হারান। ওই ব্যাবসায়ীর নাম মোঃ ছগীর মিয়া(২৮), তার বাড়ি ভাদুঘর। তিনি জানান, রিক্সা দিয়ে যাওয়ার সময় ফ্লাইওভারের উপর যাওয়ার পর রিক্সাওয়ালা তার চোখে-মুখে হঠাৎ স্প্রে করে। তারপর তিনি অজ্ঞান হয়ে যান। হুশ ফিরে দেখেন তিনি হাসপাতালের বিছানায়। উনার মোবাইল ও মানিব্যাগ নিয়ে গেছে অজ্ঞান পার্টি।

এবিষয়ে সাংবাদিক মোঃ আবুল হাসনাত অপু মনে করেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলওয়ে স্টেশন, বাসস্ট্যান্ড ও সাধারণ সড়কগুলোতে অজ্ঞান পার্টির অপতৎপরতা বেড়েছে। শুধু তাই নয়, এই চক্র অনেক সময় বাসা বাড়িতেও হানা দেয়। বিভিন্ন কৌশলে স্বর্বস্ব লুট করে নেয় তারা। সম্প্রতি এই ঘটনা বেড়েছে। এবিষয়ে পুলিশের জোরালো কোন ভূমিকা চোখে পড়ছেনা। পুলিশের পাশাপাশি গোয়েন্দা তৎপরতাও বাড়ানো উচিৎ।

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।