মার্কিন নিষেধাজ্ঞা এড়াতে বাংলাদেশ থেকে বিনা খরচে কর্মী নেবে মালয়েশিয়া

৮ জানুয়ারি, ২০২০ : ১০:৪৫ পূর্বাহ্ণ ২১৭
আশরাফুল মামুন::মালয়েশিয়ায় যেতে ইচ্ছুক বাংলাদেশি কর্মীদের  জন্যে সুখবর দিয়েছে দেশটির সরকার। কোন ধরনের খরচ ছাড়াই বাংলাদেশি শ্রমিক নেবে সরকার।
মালয়েশিয়ার মানবসম্পদ মন্ত্রী এম কুলা সেগারান গতকাল ইঙ্গিত দিয়ে বলেছেন যে, মালয়েশিয়া মার্কিন বাণিজ্য নিষেধাজ্ঞার ঝুঁকি এড়ানোর প্রচেষ্টার অংশ হিসাবে বাংলাদেশ থেকে অভিবাসী শ্রমিকদের জন্য “শূন্য-ব্যয় নিয়োগ” চুক্তিতে পৌঁছানোর লক্ষ্য নিয়েছে।
মন্ত্রী আরও বলেছেন, বাংলাদেশের সাথে দ্বিপাক্ষিক আলোচনার চূড়ান্ত পর্যায়ে – নতুন চুক্তির শর্তগুলি নেপালের সাথে এখানে নাগরিক নিয়োগের ক্ষেত্রে যে চুক্তি হয়েছে তার অনুরূপ হবে। তবে কত তারিখে কলিং ভিসা পুরোপুরি খোলা হবে সে বিষয়ে স্পষ্ট কিছু বলেনি। গতকাল মালয়েশিয়াস্থ প্রবাসী সকল সাংবাদিকদের সাথে মত বিনিময় কালে দেশটিতে নিযুক্ত মান্যবর রাষ্ট্রদূত মহম্মদ শহিদুল ইসলাম বলেন, দ্বিপাক্ষিক আলোচনায়  কলিং ভিসা খোলার সবকিছু চূড়ান্ত হয়ে আছে । এ সময় তিনি আরো বলেন ,মালয়েশিয়া সরকার আনুষ্ঠানিকভাবে সিদ্ধান্ত জানানোর পরই শ্রম বাজার উন্মুক্ত হবে।
এদিকে অবৈধ অভিবাসীদের সমস্যায় জর্জরিত এশিয়ার অন্যতম শ্রমবাজার মালয়েশিয়ায় এবার অবৈধ অভিবাসীদের বিচারের জন্য দুইটি বিশেষ আদালত পরিচালনা শুরু করবে। আগামী ৬ জানুয়ারি সোমবার মালয়েশিয়ার রাজধানীর পার্শ্ববর্তী সেলাংগারের সেমেনিই এবং প্রধানমন্ত্রী ড মাহথির মোহাম্মদের জন্মস্থান কেডাহার লাংকাউইতে দুইটি বিশেষ আদালত পরিচালনা হবে। মালয়েশিয়ার সরকারি সংবাদ সংস্থা বেরনামার খবরে এই তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে।
খবরে প্রকাশ, অভিবাসন বিভাগের আইনের ১৯৫৯ ধারায় অপরাধ কর্মকাণ্ডে জড়িতদের বিরুদ্ধে এই বিশেষ আদালত পরিচালনা করা হবে। এই বিশেষ আদালত পরিচালনা হবে শুধু সেদেশের বিভিন্ন স্থানে বিদেশি অভিবাসিদের আটকের পর এই আদালতের মাধ্যমে দ্রুত বিচার কার্যক্রম সম্পন্ন করা। উল্লেখ্য চলতি মাসে মালয়েশিয়ার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর বরাত দিয়ে একাধিক সংবাদমাধ্যম জানায়, এখন থেকে ইমিগ্ৰেশন বাহিনীর হাতে আটক কাগজপত্র বিহীন বিদেশি অভিবাসিদের আটকের পর বিচারের মুখোমুখি করা হবে।
অভিবাসন সূত্রে জানা গেছে, মালয়েশিয়া জুড়ে অভিবাসন বিভাগের চৌদ্দটি ক্যাম্প রয়েছে, যেখানে ইমিগ্রেশন ও পুলিশের অভিযানে আটককৃতদের ওই ক্যাম্পে রাখার পর স্থানীয় আদালতে বিচারের জন্য সোপর্দ করা হয়। এছাড়াও শাস্তির মেয়াদ শেষ হলে ওই ক্যাম্পে দেশে ফেরার জন্য অপেক্ষা করতে হয় অভিবাসীদের। আর এই বিশেষ আদালত পরিচালনার মাধ্যমে দ্রুত বিচার কার্যক্রম এবং দীর্ঘ পথ অতিক্রম এর সফলতা আসবে বলে সংবাদে উল্লেখ করা হয়েছে।
এরই মধ্যে বাংলাদেশ থেকে বিনা খরচে শ্রমিক নেওয়ার এমন খুশির বার্তা দিলেন মালয়েশিয়ান এ মন্ত্রী।

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।