ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মৃত ব্যাক্তিকে আসামী করে মামলা

৯ জানুয়ারি, ২০২০ : ৪:২৫ অপরাহ্ণ ১২৭৮

আসাদুজ্জামান আসাদ: ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের সরকার পাড়া ও উত্তর মৌড়াইল এলাকার একটি ভাংচুর ও লুটপাটের মামলায় পারভেজ নামে একজন মৃত ব্যাক্তিকে আসামী করা হয়েছে। পারভেজ এক বছর আগেই সড়ক দূর্ঘটনায় মারা যান। একই সাথে সেই ভাংচুরের আগে বাদি পক্ষের হামলায় আহত হোন সরকার পাড়া এলাকার রিমন। সেই রিমনকে ৫ নম্বর আসামী করা হয় মামলায়। কিন্তু তিনি ওই সময় ঢাকা মেডিক্যালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ছিলেন। গত ৮ জানুয়ারি রিমন মারা যান। সদর থানার মামলা নম্বর ০৭। মামলাটি করেন উত্তর মৌড়াইলের মৃত লাল মিয়া চৌধুরীর স্ত্রী আম্বিয়া বেগম।
জানা গেছে, গত ৪ জানুয়ারি পূর্ব শত্রুতার জের ধরে সরকার পাড়ার মৃত মালেক মিয়ার ছেলে রিমনের উপর হামলা করে উত্তর মৌড়াইলের কয়েকজন যুবক। পরে সরকার পাড়ার পক্ষ থেকেও উত্তর মৌড়াইলের লোকদের উপর হামলা চালায়। এই হামলায় উত্তর মৌড়াইলের পক্ষ থেকে মামলা হয় সরকার পাড়ার বিরুদ্ধে। সেই মামলায় সরকার পাড়ার পারভেজ নামে একজনকে আসামী করা হয়। যিনি এক বছর আগেই মারা গেছেন। অপরদিকে ৪ জানুয়ারি যাকে হামলার ঘটনাকে কেন্দ্র করে ভাংচুর হয় সেই রিমন আহত অবস্থায় ৪ দিন পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যালে গতকাল মারা যান। বর্তমানে এই দুই মৃত ব্যাক্তির নামই মামলায় আসামী হিসেবে আছে।
এবিষয়ে সরকার পাড়ার সর্দার আব্দুল হাসিম বলেন, মৃত ব্যাক্তির নামে কি করে থানায় মামলা গ্রহন করা হলো এই বিষয়টি আমার বোধগম্য না। তদন্ত করে মামলা গ্রহন করলে তো এমন হওয়ার কথা না।
এঘটনায় মৃত পারভেজের বড় ভাই নাজমুল বিস্ময় প্রকাশ করে বলেন, আমার ভাই এক বছর আগে সড়ক দূর্ঘটনায় মারা যান। তাকে কিভাবে মামলায় আসামী করা হলো।
এবিষয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক শাহাদাৎ শোভন তেপান্তরকে বলেন, সরকার পাড়ার রিমনের উপর হামলার পর আমি নিজে তাকে হাসপাতলে পাঠাই। চারদিন পর তার মৃত্যু হয়। সেই লোককেও মামলার ৫ নম্বর আসামী করা হয়েছে। আমি এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাই।

এবিষয়ে জানতে চাইলে মামলাটির আইও এসআই সুমন চন্দ্র নাথ তেপান্তরকে বলেন, মামলা আমি নেইনা, মামলা নেন থানার ওসি। বিশেষ ক্ষেত্রে তদন্ত না করেই আমরা মামলা এফআইআর করি। আর আসামীর নাম দেন বাদি। আমরা পরবর্তীতে মামলাটির পূর্ণ তদন্ত করে আদালতে রিপোর্ট জমা দিবো।

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।