সৌদিতে গণধর্ষণ হয়ে ৩ মাস ধরে হাসপাতালে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কিশোরী

১৪ জানুয়ারি, ২০২০ : ৭:৫৭ অপরাহ্ণ ১৯২৫

তেপান্তর রিপোর্ট: সুখের আশায় সৌদি আরবে কাজ করতে গিয়ে গণধর্ষনের শিকার হয়েছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগরের ১২ বছরের এক কিশোরী। সৌদিতে যাওয়ার মাত্র ১০ দিনের মধ্যেই এই ঘটনা ঘটে। তার পর থেকে এখন পর্যন্ত সে হাসপাতালেই ভর্তি। এসব তথ্য জানিয়েছেন মেয়েটির বাবা হেবজু মিয়া। আর প্রবাসী বাঙ্গালিরাই ধর্ষণ করে থাকতে পারে বলে অসুস্থ ভোক্তভুগী মেয়েটি প্রাথমিক ভাবে জানিয়েছেন। বর্তমানে ওই কিশোরী সৌদির একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। তবে তার অবস্থা খুব ভালো নয় বলেও জানা গেছে।
কিশোরীর বাড়ি বিজয়নগর উপজেলার মাশাউড়া গ্রামে।
নির্যাতনের শিকার শিকার হয়ে সৌদি আরব থেকে বাংলাদেশি নারীদের ফেরত আসার ঘটনা নতুন নয়।
কিন্তু মাত্র ১২ বছর বয়সী কোন কিশোরীকে এমন নির্যাতনের ঘটনা হয়তো এই প্রথম। চিকিৎসাধীন ওই ভোক্তভুগী মেয়ে জানান, একটি রুমে আটকে রেখে ঘুমের ঔষধ খাইয়ে নির্যাতন করত কয়েকজন প্রবাসী বাংলাদেশি। একজনকে দেখলে সে চিনতেও পারবেন বলে জানান ওই কিশোরী।

ভোক্তভুগী কিশোরী সৌদির রাজধানী রিয়াদ থেকে ১৪৮ মাইল দুরে মাজমা শহরের পাশে তোমাইর জেনারেল হসপিটালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ছিলেন। তবে বর্তমানে হাসপাতাল পরিবর্তন করা হয়েছে বলে জানান ভুক্তভোগী মেয়ের বাবা।

ঐ হসপিটালে কর্মরত বাংলাদেশী নার্স এর সাথে এবিষয়ে জানতে চাইলে তারা কান্নায় ভেংগে পরেন। তারা বলেন, এমন ভাবে নির্যাতন করা হয়েছে যা ভাষায় প্রকাশ করার মত না। মেয়েটির যৌনাঙ্গে ক্ষতের সৃষ্টি হয়েছে।

দালাল সাদ্দাম

দেশে কিশোরীর বাবা হেবজু মিয়ার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি তেপান্তরকে জানান, সাদ্দাম নামে যে দালালের মাধ্যমে মেয়ে বিদেশ গিয়েছিল সে জানায় সড়ক দূর্ঘটনার শিকার হয়ে হাসপাতালে আছে মেয়ে।
পরে ঐ হসপিটালে কর্মরত এক বাংলাদেশী মোবাইল দিয়ে ইমুতে আমার কাছে কল দিলে সব সত্য জানতে পারি আমি।
হেবজু জানান, বিজয়নগর উপজেলার পত্তন ইউনিয়নের গোয়ালখলা গ্রামের দালাল সাদ্দাম ভুল বুঝিয়ে মেয়েকে বিদেশ পাঠাতে রাজি করান। সাদ্দাম বলেছিল ১২ বছর বয়সী মেয়েদের সৌদি আরবে খুব চাহিদা, বেতনও বেশি। তাই না বুঝেই মেয়েকে বিদেশ পাঠাতে রাজি হই।
কথা গুলো বলার সময় হেবজু মিয়া কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। হেবজু বলেন, আমার মেয়ে ৪ অক্টোবর বিদেশ যাওয়ার ১০ দিন পর এই ঘটনা ঘটে। তার পর থেকে সে অজ্ঞান অবস্থায় আইসিইউতে ভর্তি। ১ সপ্তাহ হলো তার জ্ঞান ফিরেছে।
হেবজু দালাল ও দোষীদের শাস্তি দাবি করছেন।

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।