নাসিরনগরের পল্লী বিদ্যুতের ভৌতিক বিল

১ অক্টোবর, ২০১৯ : ৩:৩৬ অপরাহ্ণ ২৩০

মোঃ আব্দুল হান্নান; নাসিরনগর উপজেলা পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে যেন অনিয়মই নিয়ম! উপজেলার র্শীষ দুর্নীতিগ্রস্থ প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে এ প্রতিষ্ঠানটি। এ প্রতিষ্ঠানে প্রতিনিয়ত ভৌতিক বিল সহ বিভিন্ন অনিয়ম দুনীর্তি আর হয়রানির শিকার হচ্ছে সাধারণ গ্রাহকরা। বেশীর ভাগ ভোগান্তির শিকার গ্রামাঞ্চলের লোকেরা। সরেজমিন বিভিন্ন গ্রামে ঘোরে বিভিন্ন লোকজনের সাথে কথা বলে ভুক্তভোগী সাধারণ লোকজনের কাছ থেকে এ সমস্ত তথ্য জানা গেছে। বিদ্যুৎ অফিসের অনিয়ম দুর্নীতির কারণে প্রতি মাসে বাড়তি বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ করতে হচ্ছে গরীব অসহায় ও সাধারণ গ্রাহকে। ফান্দাউক ইউনিয়নের আতুকোড়া গ্রামে পল্লী চিকিৎসক খোকন চৌধুরী, আজমান চৌধুরী, বুড়্শ্িবর ইউনিয়নের বুড়িশ্বর গ্রামের রাজু আহমেদ, শ্রীঘর গ্রামের প্রবাসী শফিকুল ইসলাম, পূর্বভাগ ইউনিয়নের কদমতুলি গ্রামের মোঃ গিয়াস উদ্দিন, নাসিরনগর সদরের সারোয়ার চৌধুরী, কুন্ডা ইউনিয়নের কাহেতুরা গ্রামের রফিক মিয়া সহ আরো অনেকেই জানান।যাদের আগের বিল আসে ৫০০ টাকা তাদের পরের মাসে বিল আসে এক থেকে দেড় হাজার টাকা। তাড়া আরো জানায় মিটার রিডাররা মিটারের কাছে না গিয়ে ও রিডিং না দেখে এক জায়গা বসেই অনেক সময় আইডিয়ার উপর বিল করে দেয়। তাছাড়াও দেখা গেছে অনেকেরই আগের মাসে বিল পরিশোধ করার পরও পরের মাসের বিলের সাথে আগের মাসের বিল যোগ করে পাঠিয়ে দেয়া হয়। নতুন সংযোগ, খুঁটি সহ বিভিন্ন কাছে পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে গেলে অনেক সময় দালালদের দ্¦ারা হয়রানির শিকার হতে হয় এমন অভিযোগও রয়েছে তাদের। এ বিষয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জিএম মোঃ আব্দুর ওয়ারিদের সাথে তার মুঠো ফোনে যোগাযোগ করে এ সমস্ত অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন কেউ আমাদের কাছে লিখিত অভিযোগ করলে আমরা তা তদন্ত করে দেখব।

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।