নবীনগরে সভায় ২১ চেয়ারম্যানের মধ্যে ১৮ জনই অনুপস্থিত

২৭ জানুয়ারি, ২০২০ : ৪:৫৬ অপরাহ্ণ ২১৫

মোঃ সফর মিয়া: ২০২২ সালের মধ্যে জলাতঙ্ক মুক্ত বাংলাদেশ’ গড়ার লক্ষে জাতীয় জলাতঙ্ক নির্মুল কর্মসূচির আওতায় আজ সোমবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলায় অনুষ্ঠিত হলো এক গুরুত্বপূর্ণ অবহিতকরণ সভা। কিন্তু স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখা আয়োজিত এই অবহিতকরণ সভায় যাঁদের সহযোগিতায় সরকারি এই কর্মসূচির মাধ্যমে জলাতঙ্ক রোগ নির্মূল করা হবে, সেই জনপ্রতিনিধিদের অধিকাংশকেই এই সভায় অনুপস্থিত থাকতে দেখা যায়। উপজেলার ২১ ইউনিয়নের মধ্যে মাত্র তিনটি ইউনিয়নের চেয়ারম্যানকে (জনপ্রতিনিধি) গুরুত্বপূর্ণ এ সভায় উপস্থিত থাকতে দেখা যায়।
আজ সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের হলরুমে অনুষ্ঠিত ওই অবহিতকরণ সভায় সভায় সভাপতিত্ব করেন ভারপ্রাপ্ত ইউএইচএ ডা. হাবিবুর রহমান। প্রধান অতিথি ছিলেন ইউএনও মোহাম্মদ মাসুম। এতে বক্তব্য রাখেন আরএমও ডা. জেবিন, বিশিষ্ট চিকিৎসক ডা. আহমেদ হোসেন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শিউলী রহমান, প্রাণী সম্পদ কর্মকূতা ডা. শামীম আহমেদ, প্রেসক্লাব সভাপতি মাহাবুব আলম লিটন প্রমুখ।
এতে মডারেটরের দায়িত্ব পালন করেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্রের সুপারভাইজার আমজাদ হোসেন।
আয়োজকরা, মরণব্যাধি জলাতঙ্ক রোগ প্রতিরোধে পাগলা কুকুরকে টিকাদানের এ টিকাদান কর্মসূচি (এমডিভি) সফল করতে আগামি ৩০ জানুয়ারি থেকে ৩ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত পাঁচদিন নবীনগরের প্রতিটি ইউনিয়নে ইউপি চেয়ারম্যানদের সহযোগিতায় স্বাস্থ্য পরিদর্শকগণ সরকারের এ কর্মসূচিকে সফল করতে ক্যাম্পিং করবেন।

কিন্তু সরকারের নেয়া এই অবহিতকরণ সভায় উপজেলার ২১ ইউনিয়নের ১৮ জন চেয়ারম্যানকেই অনুপস্থিত থাকতে দেখা যায়। চেয়ারম্যানদের অনুপস্থিতির বিষয়ে হাসপাতালের প্রধান ডা. হাবিবুর রহমান বলেন,”প্রত্যেক চেয়ারম্যানকে একাধিকবার ফোনে ও লোক মারফত সভায় উপস্থিত থাকার অনুরোধ জানানো হয়েছে। কিন্তু এরপরও এঁরা কেন আসলেন না, সেটি বুঝতে পারছিনা।”

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।