ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ফোনে ডেকে এনে নারীর চুল কেটে ও হাত পা জ্বলসে দিল ১৬ মামলার আসামী

১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ : ৪:৩১ অপরাহ্ণ ৬২৩

তেপান্তর রিপোর্ট: ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মধ্যযুগীয় কায়দায় খোশ নাহার আক্তার (৩৫) নামে এক নারীকে নির্যাতন করেছে ১৬ মামলার আসামী মোস্তাক আহেমদ ফয়সাল (৩৬) নামীয় ব্যক্তি। গত শনিবার রাতে শহরের কাউতলী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। খোশ নাহার আক্তার পার্শ্ববর্তী হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার ধর্মনগর ইউনিয়নের শিয়ালহুড়ী গ্রামের মৃত সোনাব আলীর মেয়ে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত ফয়সালকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে পুলিশ।

ঘন্টাব্যাপী নির্যাতনে তার শরীরের বিভিন্ন জায়গায় লোহা গরম করে ছ্যাঁকা দিয়ে জ্বলছে দিয়েছে। এক পর্যায়ে তার মাথার চুলও কেটে ফেলা হয়েছে।
নির্যাতনের শিকার খোশ নাহার জানান, ফয়সালের গ্রামের বাড়ি আমার বাড়ি পাশাপাশি। সেখান থেকে তার সাথে আমার পরিচয়। তার সকল কু-কর্মের কারনে তার পরিবারকে গ্রাম ছাড়া করে দিয়েছে এলাকাবাসী। শনিবার দুপুরে সে তার মোবাইল থেকে ফোন করে আমাকে জানায়, তার বৌয়ের সাথে ঝগড়া হয়েছে। বিষয়টি সুরাহার জন্য সহযোগীতা চেয়ে বাসায় আসতে বলে। তারপর আমি বাড়ি থেকে রওনা দিয়ে আশুগঞ্জ উপজেলার ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের পাশে অবস্থিত হোটেল ওজান ভাটির সামনে অবস্থান করি। সে এসে আমাকে গাড়িতে তুলে তার কাউতলীর ভাড়া বাসায় নিয়ে যায়। তারপর আমার হাত-পা বেঁধে দেয়। ভাইয়ের কাছ থেকে বিকাশের মাধ্যমে ১০ হাজার টাকাও এনে দেয়। তার কাছে থেকে নগদ চার হাজার টাকা ও মোবাইল ফোন সেট নিয়ে নেয়। খালি স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নেয়া হয়। আরো টাকার জন্য শুরু করা হয় নির্যাতন। তার সঙ্গে কয়েকজন মিলে মারধর করতে শুরু করে। আমি চিৎকার শুরু করলেও কেউ শুনে না। পরে আমার হাত, পা ও গলায় লোহা দিয়ে গরম ছ্যাঁকা দিতে শুরু করে। কয়েকজন চেপে ধরে আমার মাথার চুলও কেটে দেয়। এক পর্যায়ে ৯৯৯ নম্বরে কল করে শিশু অপহরনকারী আটক করা হয়েছে বলে পুলিশকে অবহিত করে। পরে পুলিশ এসে আমাকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানার পুলিশের এসআই মোতালেব জানান, আমরা ৯৯৯ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এসে আহত অবস্থায় ওই নারীকে উদ্ধার করে নিয়ে আসি। অভিযুক্ত মোস্তাক আহমেদ ফয়সালকেও আটক করে থানায় নিয়ে আসি। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আলমগীর হোসেন বলেন, ফয়সালের বিরুদ্ধে হবিগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ ও বিজয়নগর থানায় হত্যা, চুরি, ডাকাতি, ছিতাই, অস্ত্রসহ ১৬ টি মামলা রয়েছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এ ঘটনায় তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।