ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আগের দামে ঔষধ বেচায় ফার্মেসী বন্ধ ও জরিমানা করছে সমিতির নেতারা,প্রশাসন নির্বিকার

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ : ৭:২২ অপরাহ্ণ ২২৩০

আসাদুজ্জামান আসাদ: ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরে আগের দামে ঔষধ বিক্রি করায় ফার্মেসী বন্ধ করে দিচ্ছে বাংলাদেশ কেমিস্টস্ অ্যান্ড ড্রাগিস্টস্ সমিতির ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নেতারা। এতদিন ঔষদের গায়ে লিখা মূল্য থেকে ১০/১২% ছাড় দিয়ে ঔষধ বিক্রি করা হতো ফার্মেসী গুলোতে। কিন্তু চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে বাংলাদেশ কেমিস্টস্ অ্যান্ড ড্রাগিস্টস্ সমিতি ফার্মেসী গুলোকে গজচ’র (সর্বোচ্চ রিটেইল প্রাইজ) দামেই ঔষধ বিক্রি করার নির্দেশ দেয়। তাদের কেন্দ্রীয় কমিটির নির্দেশে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শাখা ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ফার্মেসী গুলোতে এই নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। কেউ সেই নিষেধাজ্ঞা ভঙ্গ করলেই তার দোকান বন্ধ করে দেওয়াসহ জরিমানা করা হচ্ছে। এদিকে ঔষধের প্যাকেটের গায়ে লিখা মূল্যকে তারা বলছেন “সরকারি রেইট”, যা ভুল ব্যাখা বলে মনে করছেন অনেকেই। এবিষয়ে প্রশাসন বলছে,“তাদের কিছুই করার নেই”।

সমিতির কথামতো ঔষধ বিক্রি না করে আগের দামে বিক্রি করার কারনে গত ০৪ ফেব্রুয়ারী সন্ধ্যা ৬টায় শহরের কুমারশীল মোড়ের “মেসার্স আহাম্মদ ড্রাগ হাউজ” কে আর্থিক জরিমানা করা হয়েছে। এবং পুনরায় যদি এই ফার্মেসি আবার সেই ভুল করে তাহলে তার দোকান ১ দিনের জন্য বন্ধ থাকবে বলে আদেশ দেয় বাংলাদেশ কেমিস্টস অ্যান্ড ড্রাগিস্টস সমিতি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শাখার নেতারা। এবিষয়ে প্রতিষ্ঠানের মালিক মোঃ মোস্তফা কামাল জানিয়েছেন, সমিতি এসব করলেও তাদের সমিতির বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ নেই।

গত ০৩ ফেব্রুয়ারী দুপুরে শহরের কাউতলী ডায়াবেটিস হাসপাতালের নিচে অবস্থিত “মোল্লা মেডিকেল হল” কে আর্থিক জরিমানা করা হয়েছে। একই সাথে এই ফার্মেসী যদি পুনরায় আবার সেই ভুল করে তাহলে এই ফার্মেসিকে ১ দিনের জন্য বন্ধ করে দেওয়া হবে বলে ঘোষণা দেওয়া হয়।
গত ৫ ফেব্রুয়ারী সন্ধ্যা ৬ টায় র্কোট রোডের “ইসলামিয়া মেডিকেল হল” কে তাদের নির্ধারিত মূল্যে ঔষধ বিক্রি না করায় ওই ফার্মেসিকে আর্থিক জরিমানা করা হয়েছে। পুনরায় যদি এই ফার্মেসি আবার সেই ভুল করে থাকে তাহলে তার দোকান একদিনের জন্য বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।
গত ৮ ফেব্রুয়য়ারী দুপুর ১.৩০ মিনিটে সদর হাসপাতালের পিছনে অবস্থিত “আল শিফা ফার্মেসী”কে একই কারনে আর্থিক জরিমানা করা হয়েছে। যদি এ ফার্মেসি পুনরায় আবার এই ভুল করে তাহলে আল শিফা ফার্মেসী কে ১ দিনের জন্য বন্ধ করা হবে মর্মে আদেশ করেছে বাংলাদেশ কেমিস্টস অ্যান্ড ড্রাগিস্টসৃ সমিতি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শাখা।

গত ১৪ ফেব্রুয়ারী কুমারশীল মোড়ে অবস্থিত “মেসার্স আহাম্মদ মেডিকেল হল”কে সমিতির নির্দেশ না মানার কারণে সমিতি তার দোকান বন্ধ করে দিয়েছে এবং আর্থিক জরিমানা করা হয়েছে। এবিষয়ে এই প্রতিষ্ঠানের মালিক মোঃ ফাইজুল আনোয়ার সুমন ইতস্তত করতে করতে বলেন, সমিতি যেটা করেছে তা হয়ত ব্যাবসায়ীদের ভালোর জন্যই করেছে। এর বেশি কিছু বলতে চাননা তিনি।

গত ১৮ ফেব্রুয়ারী সন্ধ্যা ৬ টার সময় সদর হাসপাতাল রোডে অবস্থিত “সোনালী ড্রাগ হাউস”কে নির্ধারিত মূল্য থেকে বেশি মূল্যে ওষুধ বিক্রি ও ওষুধ পরিবর্তন করার অভিযোগে এই ফার্মেসিকে ১৫ হাজার টাকা আর্থিক জরিমানা করা হয়েছে ও ৪৮ ঘন্টার জন্য বন্ধ করা হয়েছে। যদিও এ বিষয়ে এই ড্রাগ হাউসের বক্তব্য জানার জন্য তাদের দোকানে গেলে তা বন্ধ পাওয়া যায়।

গত ১৯ ফেব্রুয়ারী সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় নিউ মার্কেটে অবস্থিত “মেসার্স রহমানিয়া মেডিকেল হল”কে তাদের নির্ধারিত মূল্যে ওষুধ বিক্রি না করায় আর্থিক জরিমানা করা হয়েছে। একই সাথে যদি এই ফার্মেসি পুনরায় এই ভুল করে তাহলে এই ফার্মেসি কে ১ দিনের বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

একই দিন রাত ৯ টায় টি এ রোডে অবস্থিত সিহাব মেডিকেল হল কে নির্ধারিত মূল্যে ঔষধ বিক্রি না করায় আর্থিক জরিমানা করা হয়েছে।

এসব বিষয়ে বাংলাদেশ কেমিস্টস্ অ্যান্ড ড্রাগিস্টস্ সমিতি ব্রাহ্মণবাড়িয়া শাখার সভাপতি জহিরুল হক তেপান্তরকে বলেছেন, নকল ঔষধ বিক্রি বন্ধে এই সিস্টেম চালু করা হয়েছে। ব্যবসায়ীরা বেশি দামে ঔষধ বিক্রি করলে নকল ঔষধ বিক্রি করবেনা। কিন্তু আপনাদের এই আদেশে ঔষধ ব্যাবসায়ীরা সন্তুষ্ট হলে তো তারা আগের দামে ঔষধ বিক্রি করতোনা, এমন প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, যারা আমাদের আদেশ মানবেনা তাদের বিরুদ্ধে আমরা কঠোর ব্যাবস্থা নিচ্ছি ও নিবো।

এবিষয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) পঙ্কজ বড়ুয়া তেপান্তরকে বলেন, এটা সম্পূর্ণ তাদের ব্যাক্তিগত ব্যাপার। এখানে আমাদের কিছুই করার নেই। যদি আমরা কারো কাছ থেকে অভিযোগ পাই তাহলে ব্যবস্থা নিবো।

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।