বকেয়া বেতন আদায়ে লেবাননে প্রবাসী বাংলাদেশী ও ইন্ডিয়ান শ্রমিকদের সংঘর্ষ

১৫ মে, ২০২০ : ১২:৫৫ পূর্বাহ্ণ ৫৬১

মনির হোসেন রাসেল, লেবানন: লেবাননে সর্ব বৃহত্তম ক্লিনিং কোম্পানি “রামকো (RAMCO)” গত ১৩ মে লেবানন রামকো কোম্পানি মালিকপক্ষ ও পুলিশের সাথে বাংলাদেশি ও ইন্ডিয়ান শ্রমিকদের কয়েক দফা সংঘর্ষ হয়।

AL MADINA IT ad

লেবানন দীর্ঘ ৭/৮ মাসে ডলার সংকট, করোনাভাইরাস (কোভিড ১৯) সংক্রমণ সরকারের লকডাউন দফায় দফায় বাড়ানোর কারণে শ্রমিকদের মাসিক বেতন পরিশোধ না করাতে বাংলাদেশী শ্রমিকেরা বেতন চাওয়াকে কেন্দ্র করে কোম্পানিসহ পুলিশের সাথে সেই কোম্পানিতে কর্মরত বাংলাদেশী শ্রমিকদের সাথে দফায় দফায় ধাওয়া, পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

বকেয়া বেতন ও বেতন ডলারে দাবিতে গত মঙ্গলবার লেবাননের রোড ক্লিনার কম্পানী “রামকু” (RAMCO) কম্পানীতে কর্মরত বাংলাদেশী কর্মীরা রাস্তায় নামলে তাদের প্রতিহত করতে রামকু কর্তৃপক্ষ পুলিশ খবর দিলে পুলিশের সাথে বাংলাদেশী কর্মীদের ধাওয়া ও পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এতে ক্ষিপ্ত বাংলাদেশী কর্মীরা কোম্পানীর অফিস ভাংচুর করে। জানা যায় পুলিশ এক বাংলাদেশি ও দুইজন ইন্ডিয়ান শ্রমিক কে গ্রেপ্তার করেছে বলে জানা গেছে।

জানা যায়, গত প্রায় ছয় সাঁত মাস যাবত রামকু কম্পানী বাংলাদেশী ও ইন্ডিয়ান কর্মীদের লেবানিজ পাউন্ডে পেতন পরিশোধ করে আসছে, কিন্তু চুক্তি অনুযায়ী তাদের আমেরিকান (US) ডলারে বেতন পরিশোধ করার কথা। লেবাননে ডলারের দাম বাড়ায় দেশে টাকা পাঠাতে বিপাকে পরে তারা। অন্য দিকে গত ৩ মাস যাবত কোন কর্মীর বেতন পরিশোধ করছেনা কম্পানীটি। কাজ চলছে, কিন্তু বেতন দিচ্ছে না।

বেতন ভাতা আদায়ের দাবিতে মঙ্গলবার কর্মীরা বাংলা, ইংরেজী ও আরাবী ভাষায় নথিপত্র জমা দেয়। কিন্তু কোম্পানীর ইনচার্জ কর্মীদের দেয়া সেই নথিপত্র না দেখেই ময়লার জুড়িতে ফেলে দেয়! তার পরেই ঘটে বিপত্তি। ‌ইনচার্জের সাথে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে সকল শ্রমিক উত্তেজিত হয়ে পরলে রামকু কর্তৃপক্ষ পুলিশ খবর দেয়। শ্রমিকদের সংখ্যা শতাধীক দেখে লেবানন পুলিশ দল বেধে তাদের কথা না শুনেই তাদের উপর চড়াও হলে পুলিশের সাথে ধাওপা পাল্টা ধাওয়া ঘটে।

ঘটনার এক পর্যায়ে বিক্ষুদ্ধ শ্রমিকরা রামকুর অফিস ভাংচুর করে। ওই ঘটনায় একজন বাংলাদেশী সহ দুইজন ইন্ডিয়ান কে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ দূতাবাসের প্রথম সচিব (শ্রম) “জনাব আব্দুল্লাহ আল-মামুন” এর সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ হলে তিনি জানান, বিষয়টি আমরা অবগত রয়েছি, আজ বৃস্পতিবার বিষয়টি নিয়ে লেবাননে শ্রমন্ত্রনালয় ও রামকু কর্তৃপক্ষের সাথে বসার কথা ছিল, কিন্তু রামকু কোম্পানীর উকিল আজ না আসতে পারায় আগামীকাল শুক্রবার ফের বসার দিন ধার্য্য করা হয়েছে বলে জানান তিনি।
এছাড়া আগামীকাল (১৫ মে) শুক্রবার দূতাবাসের একটি দল রামকু পরিদর্শনে যাবেন বলেও জানান সচিব, জনাব আব্দুল্লাহ আল-মামুন।

এবিষয়ে লেবাননের শ্রমিক সংগঠন ফেনাসলের সভাপতি আব্দুল্লাহ ক্রেস্ট জানান, ঘটনাটি অত্যন্ত নিন্দনীয়। বাংলাদেশী কর্মীরা সুন্দর ভাবে তাদের সমস্যার কথা কাগজে লিখে তাদের কম্পানীকে দিতে চাচ্ছিল। কিন্ত দায়িত্ব প্রাপ্ত ইনসার্জ সেটিকে ডাষ্টবিনে ফেলে দিবে কেন। এতে শ্রমিকরা উত্তেজিত হবে সাভাবিক।

আব্দুল্লাহ কেষ্ট আশাবাদী রামকু শীঘ্রই এই সমস্যার সমাধান করবে এবং গ্রেপ্তারকৃত কর্মীকে ছাড়িয়ে আনবেন।

  • 531
    Shares
ZamZam Graphics