পৌর এলাকায় পর্যায়ক্রমে প্রতিদিন শতাধিক মানুষের জন্য ইফতার পাঠাচ্ছে সাবাব

১৭ মে, ২০২০ : ১:৫৭ পূর্বাহ্ণ ৯৯৫

আসাদুজ্জামান আসাদঃ পরিচয় প্রকাশে নারাজ করোনায় সেচ্ছাসেবী হিসেবে কাজ করে যাওয়া এক তরুন তাসনিল সাবাব ও তার টিম।নিউজের জন্য ছবি তুলতে চাইলে সেইটা গোপন রাখার জোর অনুরোধ তার।
রমজানের শুরু থেকেই নিকট আন্তীয়, বন্ধু, ছোট ভাইদের সাথে নিয়ে করোনা পীড়িত অসহায় মানুষের খাদ্য সহায়তায় কাজ করে যাচ্ছে সে।প্রথম দিকে ত্রান সামগ্রী বিতরণ দিয়ে শুরু করলেও গত ১১রমজান থেকে একে একে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর এলাকার ১২টি ওয়ার্ড সহ কাদিয়ানী সম্প্রদায় থেকে ফিরে আসা নওমুসলিমদের জন্য ইফতার পাঠিয়েছে সে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে সাবাব বলেন, বর্তমান সময়ে করোনা নামক ভাইরাস দ্বারা সারা বিশ্ব প্রভাবিত। কোভিড-১৯ করোনা নামক ভাইরাস আমাদের বাংলাদেশেও খারাপ ভাবে বিস্তার লাভ করেছে। আলহামদুলিল্লাহ আল্লাহ তা’আলার অশেষ রহমতে আমরা বন্ধুমহল, আত্মীয় স্বজন, সব ছোট ভাইদের অক্লান্ত পরিশ্রমের মাধ্যমে আমরা এই করোনা ভাইরাসের খারাপ সময়ের মাঝে গরীব দুঃখী মানুষের সাহায্যের হাত বাড়াতে পেরেছি। আমরা প্রথম দিকে ত্রান সামগ্রী বিতরণ করার মাধ্যমে আমাদের কার্যক্রম শুরু করি। লকডাউন এর শুরু থেকে আমরা হতদরিদ্র মানুষের পাশে দাঁড়াতে চেষ্টা করেছি। প্রথম দফায় আমরা ৪০ টি পরিবারের মাঝে ১০ কেজি চাল, ১ লিটার তেল, ১ কেজি ডাল দিয়ে তাদের পাশে দাঁড়ায়। দ্বিতীয় দফায় আবারও ৫২ টি পরিবারের মাঝে ত্রান সামগ্রী বিতরণ করি।

এর পর আমরা পবিত্র মাহে রমজান মাসের শেষ পর্যন্ত ইফতার বিতরণ করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করি। আলহামদুলিল্লাহ ১১ রোজা থেকে আমরা প্রতিদিন বিভিন্ন ওয়ার্ডে ১০০-১২০ জন মানুষের মাঝে ইফতার পৌঁছে দিচ্ছি।
আজ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কাদিয়ানী সম্প্রদায় থেকে ফিরে আসা নওমুসলিম ও তাদের পরিবারের জন্য ইফতার পাঠিয়েছি।
তিনি আরো জানান,এতদিন আমার পরিবার,আন্তীয়দের থেকে আমার জমানো টাকা দিয়ে কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছিলাম।এখন অর্থসংকট দেখা দিয়েছে কিছুটা। তবে ঈদ অব্দি এই কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়ার প্রচন্ড ইচ্ছা আছে,যদি অনুদান পায় তবে করোনার প্রকোপ শেষ না হওয়া অব্দি কার্যক্রম চালিয়ে যাব ইনশাআল্লাহ।

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।