নাসিরনগরে পাটক্ষেতে মরদেহ,কারন খুজে পায়নি পুলিশ

২১ মে, ২০২০ : ৮:০০ অপরাহ্ণ ৬৬৪

তেপান্তর রিপোর্ট: নাসিরনগরের বুড়িশ্বর ইউনিয়নের দক্ষিন সিংহ গ্রামের মোহন লাল দাসের (৪৭)মৃত্যুর কারন এখনো খুজে পায়নি পুলিশ। ২ জনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। গরুর ঘাস কাটার জন্য বাড়ি থেকে বের হওয়ার পরদিন ১৮ই মে পাশ্ববর্তী ফান্দাউক ইউনিয়নের রসুলপুর গ্রামের পাটক্ষেতে পড়েছিলো মোহনের মরদেহ। খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করেছিল। এঘটনায় এমাদ আলী ও ইদ্রিস আলী নামে দু-জনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ।

পুলিশ জানায়- এমাদ আলী মোহন লালকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে গেছে পরিবারের এই তথ্যের ভিত্তিতে তাকে আটক করা হয়। আর ইদ্রিসকে আটক করা হয় মোহনের পাটক্ষেতে ঢুকার এবং মরে পরে থাকতে দেখার প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে। ঘটনার পর থেকে পলাতক পাটক্ষেতের মালিক ফজর আলীকে আটক করার চেষ্টা করছে পুলিশ। মোহন লাল দাসের বাড়ি বুড়িশ্বর ইউনিয়নের তিলপাড়া গ্রামে হলেও বিয়ে করে সে শ্বশুর বাড়ি সিংহগ্রামে থাকতো। তার তিন মেয়ে এবং এক ছেলে রয়েছে।

নাসিরনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সাজেদুর রহমান জানান, মোহন লালের কারো সঙ্গে শত্রুতা ছিলোনা। তার শরীরে আঘাতের যে চিহ্ন দেখা গেছে তা গুরুতর নয়। ধারালো অস্ত্রের কোন আঘাত দেখা যায়নি। কপালে কালসেটে দাগ ছিলো এবং নাক ও মুখ দিয়ে রক্ত বের হয়। অত্যন্ত গরমের কারনে ষ্ট্রোক করে মারা যেতে পারেন এমন ধারনাও করছি আমরা । তবে পোষ্টমর্টেম রিপোর্ট পাওয়ার পরই আমরা ক্লিয়ার হতে পারবো।

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।