ঈদ উপলক্ষে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার চিরচেনা ফারুকী পার্ক(অবকাশ) ও শহর বড্ড আচেনা ছিল এইবার

২৬ মে, ২০২০ : ৪:১১ পূর্বাহ্ণ ১১১০

আসাদুজ্জামান আসাদঃ ঈদ উপলক্ষে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ফারুকী পার্ক হয়ে উঠে শিশু, ছেলে-মেয়ে ও অভিভাবকদের এক মহামিলন মেলার স্থান। কিন্ত করোনা ভাইরাস এর প্রকোপে এইবার ব্রাহ্মণবাড়িয়াবাসী এক অচেনা নতুনরুপ দেখল পার্ক ও শহরের।

পার্কের মেইন গেইটে ঝুলছে তালা, পার্কের অন্যান্য প্রবেশ মুখে গুজে রাখা হয়েছে বড়ই গাছের কাটা।পুলিশের কড়াকড়ি বন্দোবস্ত যেন পার্কের কাছে ঘেষতে না পারে কেউ। জনমানবহীন অবকাশ

এর আগে ঈদ মানেই ছিল পার্কে মেলা বসা এবং সব বয়সের মানুষই বছরের এই বিশেষ দিনটিতে পার্কে হুমড়ী খেয়ে পড়া।রং তুলি হাতে দাঁড়ানো কিছু যুবক-যুবতী, বেলুনের দোকান, চটপটি,ফুসকা ও নানা রকম খেলনার দোকান। শতশত মানুষের সকাল থেকে রাত পর্যন্ত আনাগোনা থাকতো অবকাশ এলাকার ফারুকী পার্কে।

ঈদ উপলক্ষে চিরচেনা রুপ

পার্কের সামনের রাস্তাটিতে লেগে থাকত অটো-রিক্সার ভীড়। শহর ছাড়াও আশেপাশের গ্রাম থেকে দলে দলে বিনোদন পিয়াসী মানুষরা ছুটে আসতো এই পার্কে।এইবারের যানজটহীন ফাঁকা ফারুকী পার্কের সামনের রাস্তা
সেই জায়গায় এই ঈদের চিত্রটা কষ্টকর। করোনাকালীন এক ঈদের প্রতিচ্ছবি যেন হয়ে উঠেছে এই পার্ক। ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরে চিত্ত বিনোদনের জায়গা বলতে এটিই। ঈদুল ফিতর আর পহেলা বৈশাখে পার্কে লোক সমাগম হয় উপচেপড়া।এইবার ফাঁকা ফারুকী পার্ক

শহরের মোড়াইল এলাকায় এই পার্কটির অবস্থান। এই পার্কে রয়েছে মুক্তিযোদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরনে নির্মিত স্মৃতিসৌধ।ঈদের দিন শহরের যেসব স্থানে লোক সমাগম হতে পারে এমন কয়েকটি স্পট ঘিরে তৎপর ছিলো পুলিশ।করোনার প্রাদুর্ভাব এর ছাপ পড়েছে পার্কের প্রতিটা স্থানে

শহরের অবকাশ পার্ক ছাড়াও পূর্বপাশে তিতাস নদীর পাড়,কালীসীমা ও গোকর্নঘাট এলাকায় তিতাস নদীর তীরসহ আরো কয়েকটি স্পটে পুলিশের মোবাইল টিম দায়িত্ব পালন করে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো: সেলিম উদ্দিন জানান- লোক সমাগমের চিহ্নিত স্থানগুলো ছাড়াও পুরো উপজেলাতে কোথাও যাতে লোক সমাগম না হয় সেব্যাপারে তারা সতর্ক ছিলেন।এলক্ষ্যে পুলিশের মোট ৯ টি মোবাইল টিম কাজ করেছে বলে জানান তিনি। এদিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরে ছিলো নিরবতা। মানুষের চলাচল ছিলো খুবই কম। ঈদের দিনের চেনা দৃশ্য দেখা যায়নি কোথাও।

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।