প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার তালিকায় মজলিশপুর মৈন্দ গ্রামের বাবুল মেম্বারের প্রতারণা ও স্বজনপ্রীতি

৬ জুন, ২০২০ : ১:৩২ অপরাহ্ণ ১৫২৫

আসাদুজ্জামান আসাদঃ প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহারের তালিকায় এক উপকারভোগী মহিলার নামের পাশে ফোন নাম্বার দেয়া হয়েছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সদর উপজেলার মজলিশপুর ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের মৈন্দ গ্রামের ইউপি সদস্য ও মজলিশপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক বাবুল মিয়ার।এতে করে উপকারভোগীর বদলে ওই ইউপি সদস্যদের নম্বরেই যাবে প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহারের টাকা।

সারা দেশে করোনার প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত ৫০ লাখ পরিবারের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ঈদ উপহার মোবাইল ব্যংকিংয়ের মাধ্যমে দেওয়ার কার্যক্রম শুরু হয়। প্রতি পরিবারকে আড়াই হাজার টাকা করে দেওয়া হচ্ছে। সুষ্ঠুভাবে বিতরণের লক্ষ্যে জেলা প্রশাসন, উপজেলা প্রশাসন, ইউপি চেয়ারম্যান, শিক্ষক ও সমাজের গন্যমান্য ব্যক্তিদের সমন্বয়ে কমিটি গঠন করে প্রকৃত হতদরিদ্রদের তালিকা তৈরি করতে বলা হয়। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ৯টি উপজেলার ৭৫ হাজার পরিবারকে এই তালিকার অন্তর্ভুক্ত করা হয়। কিন্ত অভিযোগ উঠেছে, স্বজনপ্রীতি ও ক্ষমতার অপব্যবহার করে প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে এক মহিলার নামের পাশে নিজের মোবাইল নাম্বার সহ,আপন ভাই ও চাচাত ভাইদের নাম তালিকায় অন্তর্ভূক্ত করেছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার মজলিশপুর ইউনিয়ন এর ১নং ওয়ার্ডের মেম্বার বাবুল মিয়া।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়,মজলিশপুর ১নং ওয়ার্ডের লিষ্টের ক্রমিক নং ১ রাশিয়া বেগম এর নামের পাশে মোবাইল নাম্বার দেয়া হয়েছে ০১৭১৫৯৩৩৯৪৭। উল্লেখিত নাম্বারটি ইউপি সদস্য বাবুল মেম্বার এর।তাছাড়াও তার আপন ভাই ও চাচাত ভাইয়ের নাম দেয়া হয়েছে লিষ্টে। ক্রমিক নং ৯ দেয়া হয়েছে রমুজ আলী নামক এক ব্যাক্তি কে যিনি আর্থিক ভাবে সচ্ছল হলেও একি সাথে বয়স্ক ভাতা,ঈদ উপহার এবং ১লাখ ৫০হাজার টাকার বিনামূল্যে ঘর সুবিধা। ১০ নং ক্রমিক নং এ দেয়া আছে রমুজ আলীর ছেলে সামসু মিয়ার নাম যিনি আর্থিক ভাবে সচ্ছল তবু একি সাথে ১লাখ ৫০হাজার টাকা বিনামূল্যে ঘর ও ঈদ উপহার সুবিধা ভোগ করছেন।

এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসক বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন মৈন্দ গ্রামের বাসিন্দা মুছা মিয়া।

অভিযোগে মুছা মিয়া বলেন,আমাদের মজলিশপুরের ইউপি চেয়ারম্যান তাজুল ইসলাম ও মেম্বার বাবুল মিয়া মিলে যোগসাজশে দুর্নিতি করে যাচ্ছে।তারা ১০টাকা মূল্যের চাল বিতরণের লিষ্ট প্রকাশ করে নাই।কারন তাতে অনেক অনিয়ম করেছে তারা। প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার তালিকায় প্রতারণা করে রাশিয়া বেগম এর নামের পাশে নিজের মোবাইল নাম্বার এবং তার ভাই সহ বংশের অনেকের নাম দিয়েছে লিষ্টে যারা আর্থিক ভাবে সচ্ছল।

এব্যাপারে জানতে চাইলে ইউপি সদস্য বাবুল মিয়া তেপান্তর কে বলেন,আমার মোবাইল নাম্বার কিভাবে লিষ্টে এল আমি জানিনা।রাশিয়া বেগম আমার দুরসম্পর্কের আন্তীয়।আমার ভাই সহ যাদের নাম লিষ্টে দিয়েছি সবাই গরীব মানুষ।আর আপনারা তো বুজেন ই কেন নাম দিতে হয়,এমন ভাবে লিষ্ট নিয়ে আলোচনা হবে আগে বুঝি নাই।

  • 816
    Shares