ময়লার ভাগাড় আনন্দবাজার নৌকাঘাট, কর্তৃপক্ষ নির্বিকার

৬ জুন, ২০২০ : ৭:৪১ অপরাহ্ণ ৩০৭

কাজী আশরাফুল ইসলাম: ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শহর থেকে নৌপথে বিজয়নগর,নবীনগর এবং আখাউড়া উপজেলায় যাবার গুরুত্বপূর্ণ নৌকাঘাট হচ্ছে আনন্দবাজার নৌকাঘাট।প্রতিদিন হাজারো যাত্রী নৌপথে শহরে প্রবেশের জন্য এই ঘাটটি ব্যাবহার করেন।যাত্রী পরিবহনের জন্য ঘাটে রয়েছে শতাধিক যাত্রীবাহী ইঞ্জিনচালিত নৌকা।ভোর থেকে শুরু হয়ে সন্ধা রাত পর্যন্ত চলে যাত্রী ও পন্য পরিবহন। উল্লেখ্য, জেলার অতিগুরুত্বপূর্ন ব্যাবসায়ীক কেন্দ্র আনন্দবাজার চাল মোকাম, জগৎবাজার, টানবাজার, লাখীবাজার(স্বর্নপট্টি), হকার্স মার্কেট, নিউমার্কেটসহ অনেক ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে এই নৌকাঘাটকে কেন্দ্র করে।যাতায়াতের গুরুত্বপূর্ণ রুট বিবেচনা করে শহরের বুক চিড়ে বয়ে চলে তিতাস নদীর তীরে অবস্থিত এই নৌকাঘাটকে সৌন্দর্যমন্ডিত করার পদক্ষেপও নেয়া হয়েছিল বেশ আগে।কিন্তু গত কয়েকবছরে এই নৌকাঘাটসহ আশেপাশের এলাকা মারাত্মক দূষণের কবলে পড়ে।

আনন্দবাজার এবং তার আশেপাশের এলাকার সকল বর্জ্য ফেলা হচ্ছে এই ঘাটের চারপাশে।নদীর তীরবর্তী যে ঘাটের রুপ হওয়ার কথা ছিল মনোমুগ্ধকর সেই ঘাট এখন বিভৎস রুপ ধারণ করেছে।আবর্জনার গন্ধে নিশ্বাস নেয়া দায় হয়ে পড়েছে।নৌপথের যাত্রীসহ বাজারে আসা যাওয়া করা ক্রেতা বিক্রেতা সকলকেই পোহাতে হচ্ছে অসহনীয় দুর্ভোগ। অথচ কয়েকবছর আগে তিতাস নদীর তীর ঘেঁষে ওয়াকওয়ে নির্মাণ করা হয় যাতে শহরবাসী নদীর সৌন্দর্য উপভোগ করতে পারে।কিন্তু সারি সারি ময়লার স্তুপে সয়লাব হয়ে আছে ওয়াকওয়েটি।

স্থানীয়রা অভিযোগ করেন,পৌরসভার পক্ষ থেকে কোন বর্জ্য ব্যবস্থাপনা প্রকল্প গ্রহণ করা হয়নি।সঠিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনা প্রকল্প গ্রহণ করা হলে নৌকাঘাটটির এত বেহাল দশা হতো না।নৌকা ঘাটের আশেপাশে ফেলা এসব বর্জ্য দূষিত করছে নদীর পানি এবং কমিয়ে দিচ্ছে নদীর নাব্যতা। সম্প্রতি এ বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সমালোচনার ঝড় উঠে।পৌর কর্তৃপক্ষের দায়িত্বজ্ঞানহীনতাকেই এই সমস্যার জন্য দায়ী করেন অনেকে।

এবিষয়ে কথা বলার জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক কামরুজ্জামান সরকারের সাথে যোগাযোগ করার চেস্টা করেও তা সম্ভব হয়নি।

বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় পৌর কর্তৃপক্ষের গাফেলতির ব্যাপারে জানতে চাওয়ার জন্য পৌর মেয়র মিসেস নায়ার কবীরের মুঠোফোনে কল দেয়া হলেও তিনি রিসিভ করেন নি।এই পথে যাতায়াতকারী যাত্রী সাধারণ এবং স্থানীয় জনগন সমস্যার দ্রুত সমাধানে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

  • 279
    Shares