নবীনগরে ধর্ষণ মামলায় একজন আটক

১৩ জুন, ২০২০ : ৫:১৫ অপরাহ্ণ ৮১৮

মোঃ সফর মিয়া: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে এক স্কুলছাত্রীকে অপহরণ করে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণের ঘটনার তিন দিন পর ওই ছাত্রীকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ সময় ওই অপহরণকারী যুবক রিয়াদুল ইসলাম শান্ত(২০)কে আটক করা হয়।

শনিবার ওই স্কুল ছাত্রীর মা শিল্পী আক্তার বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে নবীনগর থানায় মামলা করেন। ওই মামলায় তাকে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। ধর্ষিতা ছাত্রীকে মেডিকেল পরীক্ষার জন্য জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃত যুবক উপজেলার রসুল্লাবাদ পশ্চিম পাড়া গ্রামের হাজী আবদুর রউফ মিয়ার ছেলে।

সূত্র জানায়, উপজেলার বাড়িখলা গ্রামের ওই শিক্ষার্থী লাউর ফতেহপুর আর.এন.টি উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ওই ছাত্রী গত ৮জুন সকালে বাড়ি থেকে বের হয়ে যাওয়ার পর আর বাড়ি ফিরেনি। পাড়া প্রতিবেশী ও আত্মীয় স্বজনদের বাড়িতে খুঁজা খুঁজি করে নাবালিকা ওই ছাত্রীকে না পেয়ে তার পরিবারের পক্ষ থেকে ১০জুন নবীনগর থানায় একটি নিখোঁজ সাধারণ ডায়েরী করেন।

মামলা ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ওই ছাত্রীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে বখাটে রিয়াদুল ইসলাম শান্ত তার নিজ বাড়িতে নিয়ে যায় এবং জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। সংবাদ পেয়ে পুলিশ ওই গ্রামে অভিযান চালালে রিয়াদুল ইসলাম শান্ত ওই ছাত্রীকে নিয়ে অন্যত্র পালিয়ে যায়। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শুক্রবার (১২/০৬) বিকেলে নবীনগর পৌর এলাকার শেখ রাসেল স্টেডিয়ামের সামনে থেকে ওই স্কুল ছাত্রীসহ অপহরণকারীকে আটক করে পুলিশ। গতকাল শনিবার (১৩/০৬) ওই স্কুল ছাত্রীর মা শিল্পী আক্তার বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে নবীনগর থানায় মামলা করেন।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে নবীনগর থানার ওসি (তদন্ত) রুহুল আমিন বলেন, এই ঘটনায় ওই স্কুল ছাত্রীর মায়ের লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে নবীনগর থানায়, নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে, একটি অপহরণ ও ধর্ষণ মামলা দায়ের হয়েছে। আটক রিয়াদুল ইসলাম শান্তকে আদালতে ও ভিকটিমকে মেডিকেল পরীক্ষার জন্য জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। মামলাটি তদন্তপূর্বক পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।