ভারী বর্ষণে নবীনগর-ব্রাহ্মণবাড়িয়া সড়ক ভেঙে দু’ভাগ, চরম ভোগান্তিতে এলাকাবাসী

১৮ জুন, ২০২০ : ৩:৪৮ অপরাহ্ণ ৭০৮

মোঃ সফর মিয়া: ব্রাহ্মণবাড়িয়া-নবীনগর সড়কের কৃষ্ণনগর ইউনিয়নের আশ্রাফপুর নামক স্থানে ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। দু’ভাগ হয়ে গেছে সড়ক। এতে ওই সড়ক দিয়ে জেলা সদর থেকে নবীনগর পর্যন্ত সরাসরি যান চলাচল বন্ধ রয়েছে। মঙ্গলবার ও বুধবারের ভারী বর্ষণে সড়কটিতে ভাঙ্গন দেখা দেয় বলে জানান স্থানীয়রা।

নবীনগর উপজেলার কৃষ্ণনগর ইউনিয়নের আশ্রাফপুর এলাকায় সড়কের পাশে থাকা বাড়িঘরের পানি সড়কের উপর দিয়ে নিষ্কাশনের ফলে এই ভাঙ্গনের সৃষ্টি হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। এতে বৃহস্পতিবার ভোর থেকে সড়কের ওই স্থান দিয়ে কোন যানবাহন পারাপার হতে পারছেনা।

নবীনগরের সীতারামপুর থেকে জেলা শহরের গোকর্ণঘাট এলাকা পর্যন্ত প্রায় ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ সড়কটি বর্তমানে একটি ব্যস্ততম সড়ক। নবীনগর উপজেলার মানুষ ছাড়াও সদরের কয়েকটি ইউনিয়নের লোকজনের চলাচল রয়েছে এই সড়কে। যাত্রী পরিবহনে সড়ক দিয়ে শতশত সিএনজি, অটো ইজিবাইক, ব্যাটারী চালিত রিকসা চলাচল করে। পন্যবাহী নানা যান এবং অনেক প্রাইভেট গাড়ির চলাচল রয়েছে এই সড়কে।

শুধু এই ভাঙ্গনই না সীতারামপুর বাজার থেকে কৃষ্ণনগর বাজার পর্যন্ত মাত্র তিন কিলোমিটার দুরত্বের প্রায় পুরো সড়কটির অবস্থাই একেবারে নাজুক। তবে সড়কটি একসময় পাকা থাকলেও, বর্তমানে সড়কটির প্রায় নব্বই শতাংশ থেকে সম্পূর্ণ পীচ ওঠে গেছে। সৃষ্টি হয়েছে শতশত বড় বড় গর্ত ও খানাখন্দের। ফলে চলাচল অনুপযোগি বিধ্বস্থ এই সড়কটি দিয়ে অটোরিক্সা ও মটরসাইকেলে চড়ে অনেকটা জীবনের ঝুঁকি নিয়েই এলাকাবাসিকে চলাচল করতে হয়। যার কারণে প্রায়ই অটোরিক্সা উল্টে দূর্ঘটনা ঘটছে বলেও জানিয়েছেন এলাকাবাসি।

অতিদ্রুত সড়কটির মেরামত কাজ সম্পন্ন করা হবে জানিয়ে সড়ক ও জনপথ ব্রা‏‏হ্মণবাড়িয়া জেলার নির্বাহী প্রকৌশলী পঙ্কজ ভৌমিক মুঠোফোনে বলেন, ভারী বর্ষণের ফলে এমনটা হয়েছে। তবে আমরা দ্রুতই মেরামতের মাধ্যমে যাত্রী সাধারণের চলাচলের উপযোগী করে দিবো।

এ বিষয়ে নবীনগর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান মনির মুঠোফোনে জানান, আমরা আমাদের জেলা সড়ক ও জনপথ বিভাগে যোগাযোগ করছি, যতদ্রুত সম্ভব রাস্তাটির মেরামত কাজ সম্পন্ন করা হবে।

উল্লেখ্য গত ২৭ মে ভারী বর্ষণে ব্রা‏হ্মণবাড়িয়া টু নবীনগর সড়কের ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার সাদেকপুর ইউনিয়নের বিরামপুর নামক স্থানেও সড়ক ভেঙ্গে দু’ভাগ হয়ে যায়।

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।