আখাউড়ায় কাপ্তান বাহিনীর হাতে বর্বর নির্যাতনের শিকার যুবক

২৯ জুন, ২০২০ : ১০:০৪ অপরাহ্ণ ৬৬৪

দ্বীন ইসলাম খান: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় মাদক ব্যবসায়ী কাপ্তানের লোকেরা এক যুবককে ধরে গাছের সাথে বেধে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন করেছে বলে অভিযো উঠেছে।
আখাউড়া দক্ষিণ ইউনিয়নের ছোট কুড়িপাইকা এলাকায় সোমবার সকালের দিকে এই ঘটনা ঘটে। নির্যাতিত যুবকের নাম নয়ন মিয়া (৩২),তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদরের সুহিলপুর এলাকার শহিদ মিয়ার ছেলে। এঘটনায় ভুক্তভোগীর বাবা মোঃ শহীদ মিয়া বাদী হয়ে আখাউড়া থানায় মামলা দায়ের করেছেন।

স্থানীয়দের মাধ্যমে জানা গেছে, গেল কদিন পূর্বে ছোট কুড়িপাইকা গ্রামের শীর্ষ মাদক কারবারী মাদক সম্রাট কাপ্তান মাদক সহ পুলিশের হাতে আটক হন। কাপ্তান আটকের ঘটনায় নয়ন জড়িত থাকতে পারে বলে কিছু মানুষ বলাবলি করছিলো। ওই সূত্র ধরেই নয়ন কে গাছে বেধে নির্যাতন করা হয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন জানায়, কাপ্তান মাদক সহ পুলিশের হাতে আটক হয়ে বর্তমানে জেলহাজতে রয়েছে। এদিকে এলাকায় থাকা কাপ্তানের সাঙ্গপাঙ্গরা মাদক ব্যবসা করেই যাচ্ছে। এলাকায় মাদকের ত্রাস সৃষ্টি করছে কাপ্তান বাহিনী। কাপ্তান আটকের বিষয়কে কেন্দ্র করেই নয়নের উপর পাশবিক নির্যাতন চালায় কাপ্তান বাহিনীর সদস্যরা।

খোজ নিয়ে জানা গেছে, নির্যাতনের শিকার নয়ন নামে ওই যুবক ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার সুহিলপুর এলাকার মোঃ শহিদ মিয়ার পুত্র। নির্যাতনের শিকার ওই যুবক ছোটকুড়িপাইকা গ্রামে তার আত্বীয়ের বাড়িতে বেড়াতে আসলে কাপ্তানের সাঙ্গপাঙ্গরা নয়ন কে দেখেই তার উপর অতর্কিত হামলা চালিয়ে তাকে গাছের সাথে বেধে ফেলে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন চালায়।

পরে স্থানীয়দের মাধ্যমে নির্যাতন কারীদের পরিচয় সনাক্ত করতে পেরে থানায় মামলা দ্বায়ের করেন নয়নের পিতা শহীদ মিয়া। এতে আসামী করা হয়, ওই এলাকার তিতু মিয়ার পুত্র আশিক মিয়া, ও নাঈম মিয়া, কাপ্তান মিয়ার পুত্র সিয়াম মিয়া, রমজান মিয়ার পুত্র জিদান ও বাবু, জমসেত মিয়ার পুত্র কালু মিয়া, আঃ আজীজ মিয়ার পুত্র নজু মিয়া ও কায়কোবাদ এবং কাউসার মিয়া তাদের সকলের বাগি একই এলাকায়।

এসময় এলাকাবাসী জানায়, জীবনে কোনদিন এমন বর্বরতা দেখিনি আমরা এসব নির্যাতন দেখে থানায় খবর দিলে আখাউড়া থানার এস আই নিতাই চন্দ্র দাস এসে নয়নকে উদ্ধার করে।

নির্যাতনের ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে আখাউড়া থানার এস আই নিতাই চন্দ্রদাস জানান, স্থানীয়দের মাধ্যমে খবর পেয়ে আমি ঘটনাস্থলে পৌছে মাটিতে পড়ে থাকা অবস্থায় নয়নকে দেখতে পায় তখন তাকে উদ্ধার করি।

তবে স্থানীয়দের কে কে মেরেছে জিজ্ঞাসা করলে কেউ মুখ খুলতে রাজি হননি। নির্যাতনকারীদের সঠিক পরিচয় পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেবো।

  • 194
    Shares