দেশে ফেরা হল না লেবানন প্রবাসী আল আমিনের

১৮ জুলাই, ২০২০ : ১:৫৬ অপরাহ্ণ ৪৩০

মনির হোসেন রাসেল, লেবানন: লেবাননের বাংলাদেশ দূতাবাসে নাম নিবন্ধন করেও দেশে যেতে পারলেন না মোঃ আল আমিন। এর আগেই মর্মান্তিক সড়ক দূর্ঘটনায় তাঁর অকাল মৃত্যু হয়।

জাবেল লেবনান নামে একটি স্থানীয় হাসপাতালে ৪ দিন মৃত্যু শয্যায় থেকে গত বৃহষ্পতিবার(১৬ জুলাই) রাতে তাঁর মৃত্যু হয়।বর্তমানে মরদেহ হাসপাতালের হিমঘরে আছে।

মোঃ আলামিনের চাচাত ভাই লেবানন প্রবাসী মোঃ মেহেদী জানায়, কাগজপত্র বিহীন প্রবাসী মোঃ আলামিন বাংলাদেশ দূতাবাসে নাম নিবন্ধনসহ সমুদয় অর্থ পরিশোধ করে নিজদেশে ফেরত যেতে অপেক্ষায় ছিলেন।সিরিয়াল নম্বর ছিল ৪৯৮৭।

কুমিল্লা জেলার বি-পাড়া উপজেলার উত্তর চান্দলা গ্রামের গরীব কৃষক আবদু মিয়া ৬ সন্তানের জনক।একমাত্র ছেলে মোঃ আলামিন সহ তাঁর আরো ৫টি কন্যা সন্তান রয়েছে পরিবারে। অভাবের সংসারে একমাত্র আবদু মিয়া ছিলেন পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যাক্তি। ৫ বোনের খুব আদরের ছিল একমাত্র ভাই মোঃ আলামিন।

পরিবারে একটু স্বচ্ছলতা আনার আশায় বিভিন্ন জনের নিকট থেকে ধারদেনা করে প্রায় ৪ লাখ টাকা খরচ করে একমাত্র ছেলে মোঃ আলামিনকে একটি কোম্পানীর ভিসায় ২০১৭ সালে লেবাননে পাঠান।মোঃ আলামিন লেবাননে আসার পর দালালের প্রতারনায় অবৈধ হয়ে যায়। অনেক দিন বেকার ছিলেন। পরে অন্য একটি ক্লিনিং কোম্পানীতে কাজ শুরু করে।

গত রবিবার(১২ জুলাই)বৈরুতের সুক আল আহাদ এলাকার একটি বিল্ডিংয়ে প্রতিদিনের মত কাজে যায় মোঃ আলামিন। সকালে আবর্জনা ফেলতে রাস্তা অতিক্রম করার সময় একটি দ্রুত গতির প্রাইভেটকার পিছন থেকে ধাক্কা দিলে সে মাথায় প্রচন্ড আঘাতপ্রাপ্ত হয়।পরে এম্বুল্যান্স এসে তাঁকে জাবেল লেবনান হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক পরীক্ষা নিরীক্ষা করে জানায় যে তাঁর অবস্থা আশংকাজনক। পরে চিকিৎসক তাঁকে নিবিড় পর্যবেক্ষন রুমে রেখে চিকিৎসা প্রদান করলেও তাঁর শাররিক অবস্থার অবনতি হতে থাকে। অবশেষে ৪ দিন বাঁছ মরার লড়ায় শেষে, গত বৃহষ্পতিবার(১৬ জুলাই) রাতে না ফেরার দেশে চলে যায় মোঃ অালঅামিন।

এদিকে মোঃ আলামিনের অকাল মৃত্যুতে নিজ এলাকা সহ পরিবারে শোকের ছায়া নেমে আসে।মরদেহ দ্রুত দেশে পাঠাতে তাঁর পরিবার দূতাবাসের সাহায্য কামনা করেছেন। মৃত্যুকালে মোঃ আলামিন এক সন্তানের জনক ছিলেন।

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।