ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় প্রাইভেট ক্লিনিকের বিরুদ্ধে সিজারের সময় শিশু চুরির অভিযোগ

২১ জুলাই, ২০২০ : ১০:০৪ পূর্বাহ্ণ ২০৩২

আসাদুজ্জামান আসাদঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আল্ট্রাসনোগ্রাম রিপোর্ট নিয়ে বিড়ম্বনা তৈরি হয়েছে। রিপোর্ট অনুযায়ী গর্ভে দুই শিশু। অথচ প্রসবের পর মায়ের কোলে দেয়া হয়েছে এক সন্তান। ওই প্রসূতির পরিবার এখন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে আরেকটি সন্তান দাবি করছে।তাদের দাবী হাসপাতাল কতৃপক্ষ সিজারের সময় চুরি করেছে এক শিশু।যদিও আলট্রাসনোগ্রাম রির্পোট ভুল বলে দাবি করছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

গতকাল সোমবার (২০ জুলাই) সন্ধ্যায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরশহরের সেবা ক্লিনিক নামের একটি বেসরকারি হাসপাতালে এ ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে চাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে পুরো ব্রাহ্মণবাড়িয়া জুড়ে।

জানা যায়,ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার নাটাই (উত্তর) ইউনিয়নের ভাটপাড়া গ্রামের বাসিন্দা প্রবাসী মাহবুবুর রহমানের স্ত্রী শিউলি বেগম প্রসব বেদনা নিয়ে সোমবার বিকেলে সেবা ক্লিনিকে ভর্তি হন। গত ১২ জুলাই করা আল্ট্রাসনোগ্রাম রিপোর্ট দেখে শিউলির গর্ভে দুইটি শিশু রয়েছে বলে জানানো হয়। এরপর সন্ধ্যায় সিজারিয়ান অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে এক শিশুর জন্ম দেন শিউলি।

সেবা ক্লিনিকের চিকিৎসক সাইমা রহমান অস্ত্রোপচার করেন। অস্ত্রোপচারের আগে দুই শিশুর কথা বলা হলেও শিউলির পরিবারকে জানানো হয় তিনি একটি সন্তান জন্ম দিয়েছেন। এ নিয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বাগবিতণ্ডায় জড়ায় শিউলির পরিবারের লোকজন।

শিউলি বেগমের মা সালমা বেগম জানান, তার মেয়ে গর্ভবতী হওয়ার পর থেকে ডা. সাইমাকে নিয়মিত দেখাতেন। সর্বশেষ তার পরামর্শে শহরের সেফ কেয়ার ডায়াগনস্টিক সেন্টারে গিয়ে ডা. মোহাম্মদ মোজাম্মেল হকের কাছে আলট্রাসনোগ্রাম করানো হয়। আলট্রাসনোগ্রাফির রির্পোট অনুযায়ী শিউলির গর্ভে যমজ সন্তান রয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়।কিন্তু সিজারের পর একটি শিশু দেয়া হয়েছে।অন্য শিশুটি চুরি করেছে হাসপাতাল কতৃপক্ষ বলে জানান তিনি।

সেবা ক্লিনিকের চিকিৎসক সাইমা রহমান বলেন, আলট্রাসোনগ্রাম রির্পোটটি ভুল। অস্ত্রোপচারের সময় গর্ভে একটি শিশুই ছিল।

সেফ কেয়ার ডায়াগনস্টিক সেন্টারের চিকিৎসক মোহাম্মদ মোজাম্মেল হকও আল্ট্রাসনোগ্রাম রিপোর্টটি ভুল ছিল বলে জানিয়েছেন।এবং এ বিষয়টি ধামাচাপা দিতে ক্ষমা প্রার্থনা সহ সমযোতার প্রচেষ্টা করেন।

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।