জীবন নিয়ে খেলা

৩ আগস্ট, ২০২০ : ৩:৫৪ অপরাহ্ণ ৭৩০

সীমান্ত খোকন: ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরতলীর গোকর্ণ এলাকার নদীর ওপারে রসুলপুর গ্রাম। এই গ্রামের খোলা হাওর দিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে নবীনগর যাওয়ার রাস্তা তৈরি হয়েছে কয়েক বছর আগে। হাওরের মাঝখান দিয়ে সড়ক হওয়ায় স্বাভাবিক ভাবেই জায়গাটির সুন্দর্য বেড়েছে। তাই ভ্রমন পিপাসুদের জন্য এটি একটি প্রিয় স্থান হিসেবে গড়ে উঠেছে। বিশেষ করে বর্ষা কালে এর সুন্দর্য অনেক বেড়ে যায়, সাথে থাকে উত্তাল বাতাস। ফলে ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের যুবক-যুবতীসহ স্ব-পরিবারে অনেকেই সেখানে বিকেল বেলা ঘুরতে যান।
কিন্তু এর মধ্যে একদল যুবক আছে যারা রসুল পুরের সেই রাস্তা দিয়ে অশৃঙ্খল ভাবে খুব জুরে বাইক চালায়। আবার আরেক দল উঠতি বয়সী কিশোর আছে যারা সেখানকার জাতীয় গ্রীডের বৈদুতিক টাওয়ারের উপর থেকে পানিতে লাফিয়ে পড়ে মজা নেয়। কিন্তু সামান্য একটু ভুল ত্রুটি হলে যে জীবন চলে যেতে পারে সেই দিকে তাদের কোন খেয়াল নেই। শুধু যে বৈদুতিক তারে লেগে মরতে পারে তা নয়, মারা যেতে পারে লাফ দেওয়ার পর টাওয়ারের লোহার কোন এ্যাঙ্গেলে লেগেও। এই বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় কেউ যেমন বাধা দিচ্ছেনা তেমনই নজর নেই প্রশাসনেরও।

এছাড়াও ঈদুল আযহাকে কেন্দ্র করে রসুলপুরে প্রতিদিন যেই হারে জনসমাগম হচ্ছে তা কল্পনারও অতীত। একটি রাস্তায় কি পরিমানে জনসমাগম হলে সেখানকার রাস্তায় গাড়ি জ্যাম লেগে থাকে তা কি ভাবা যায়? মানুষ যে দাড়িয়ে থাকবে সেই জায়গাটি পর্যন্ত নেই। এর ফলে করোনা ভয়বহ রুপ নিতে পারে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায়। অথচ এতকিছুর পরও প্রশাসনের নিরব ভূমিকা তাদের দায়ীত্বশীলতা নিয়ে মনে প্রশ্ন জন্ম দেয়।

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।