“শরীফপুর-বায়েক” সড়কটির বেহাল দশা, দেখার যেন কেউ নেই

১৩ আগস্ট, ২০২০ : ৬:০৮ অপরাহ্ণ ৫৯৪

সীমান্ত খোকন: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ উপজেলার শরীফপুর গ্রামের প্রধান সড়কটি দীর্ঘদিন ধরে বেহাল অবস্থায় পরে আছে। সড়কটি দেখার যেন কেউ নেই। এনিয়ে এলাকার অনেক মানুষের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বায়েক থেকে শরীফপুর শের আলী মার্কেট পর্যন্ত রাস্তার বিভিন্ন অংশে বড় বড় গর্ত আছে। একারনে রিক্সা,সিএনজি ও মোটরসাইকেলসহ যেকোন গাড়ি চলাচল ব্যহত হচ্ছে। গ্রামের অনেক বয়স্ক লোক রাস্তার খারাপ অবস্থার কারনে ঝাকুনির ভয়ে গাড়িতে চরে যাতায়াত করতে চাননা। এর মধ্যে সড়কটির কিছু অংশে একেবারেই পিচ উঠে গেছে। ফলে বুঝা যায়না এটি পিচ ঢালাই রাস্তা নাকি মাটির রাস্তা। বৃষ্টি হলে এই সড়কের অবস্থা আরো বয়াবহ হয়। পিচের রাস্তা হওয়া সত্বেও কাদায় ভরপুর থাকে সড়ক। তখন অনেক সময় পিছলে পড়ে আহতও হয় গ্রামের মানুষ। এছাড়াও এই সড়কে চলাচলকারী গাড়ি দূর্ঘটনার কবলে পড়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায় অনেক। এই সড়কটি দিয়ে গ্রামের কয়েক হাজার মানুষ যাতায়াত করা ছাড়াও পার্শবর্তী গৌরনগর গ্রামের মানুষও এখান দিয়ে যাতায়াত করে। ফলে শরীফপুর ও গৌরনগরের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ সড়ক এটি।

গ্রামের বিকল্প সড়ক হিসেবে পরিচিত শরীফপুর থেকে খোলাপাড়া যাওয়ার সড়কটিরও ভালো অবস্থা না থাকায় শরীফপুর থেকে বায়েক যাওয়ার সড়কটিই প্রধান সড়ক। এর মধ্যে শরীফপুর শের আলী মার্কেট থেকে পাগলা নদীর পাড় যাওয়ার অংশটি বেশি খারাপ বলে জানিয়েছেন ওই এলাকার বাসিন্দারা। শরীফপুরের এই সড়কটি দিয়ে প্রতিদিনই শরীফপুর ও গৌরনগরের মানুষ জেলা ও উপজেলা শহরে নিয়মিত যাতায়াত করেন। তাই এই সড়কটির এই দশার ফলে এলাকার জনপ্রতিনিধিরা কি কাজ করছেন এ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে।
গত কয়েক বছর ধরে রাস্তাটির এমন খারাপ অবস্থা থাকলেও এটি মেরামত করার কোন উদ্যোগ চোখে পড়ছেনা।

এ বিষয়ে শরীফপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাফি উদ্দিন চৌধুরী তেপান্তরকে বলেন, রাস্তাটি মেরামতের জন্য সরকারের কাছে আবেদন করা হয়েছে। করোনার কারনে তা আটকে আছে।

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।