প্রত্নতত্ব সম্পদ, কবরস্থান ও বাড়িঘর রক্ষা করে মহাসড়ক প্রসস্থ করার দাবিতে সংবাদ সম্মেলন

১৮ আগস্ট, ২০২০ : ২:১৪ অপরাহ্ণ ৪৯৬

তেপান্তর রিপোর্ট: প্রত্নতত্ব সম্পদ, তিনশত বছরের কবরস্থান ও বাড়িঘর রক্ষা করে ঢাকা- সিলেট মহাসড়ক প্রসস্থ করার দাবিতে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুর প্রায় ১২টার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাব মিলনায়তনে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। জেলার সরাইল উপজেলার বাড়িউড়ার বাসিন্দারা এই সাংবাদিক সম্মেলনের আয়োজন করে।

এলাকাবাসীর পক্ষে লিখিত বক্তব্য হাবিবুর রহমান বলেন, সরকার ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক প্রসস্থ করণের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এই মহাসড়কের পাশে প্রায় তিনশত বছর পুরাতন ৩কিলোমিটার বিস্তৃত কবরস্থান রয়েছে। এই কবর স্থানে সদর উপজেলার মজলিশপুর, মৈন্দ ও সরাইল উপজেলার নোয়াগাঁও বাড়িউড়া, ইসলামাবাদ, বাড়িউড়া এলাকার মানুষের মরদেহ সমাহিত করা হয় এই কবরস্থানে। বাড়িউড়া এলাকায় এই মহাসড়কের পাশে হাতিরপুল নামক একটি প্রত্নতত্ব বিভাগের আওতাধীন নিদর্শন রয়েছে। যা দূরদূরান্ত থেকে দর্শন করতে আসেন মানুষ। একই এলাকায় প্রায় ৪০ বছর পূর্বে বাড়িউড়া জামে মসজিদ নির্মিত আছে। এছাড়াও জাঙ্গাল হাটি ও নোয়াহাটি নামের ঘনবসতিপূর্ণ দুইটি মহল্লা রয়েছে। এই মহল্লাতে নয়শত পরিবারের প্রায় সাড়ে চার হাজার মানুষ রয়েছে। প্রতি পরিবারের জায়গা মাত্র ৩০থেকে ৫০পয়েন্ট। এই জায়গার বাজার মূল্য থেকে সরকারি মূল্য অনেক কম। যদি এই জায়গা অধিগ্রহণ করা হয় তাহলে তারা অনেক ক্ষতিগ্রস্থ হবে।

তিনি আরও বলেন, সরকার এই মহাসড়ক প্রসস্থ জনস্বার্থেই করছেন। পাশাপাশি উল্লেখিত ঐতিহাসিক কবরস্থান, প্রতœতত্ত¡, মসজিদ ও দুইটি পাড়ার বসতভিটাও জনগুরুত্বপূর্ণ। এসব স্থাপনা ও কবরস্থান রক্ষা করে দক্ষিণ পাশে সড়কটি প্রসস্থ করার অনেক জায়গা রয়েছে। পাশাপাশি এতে সরকারের বিপুল অর্থের সাশ্রয় হবে। এই স্থাপনা রক্ষার জন্য আমরা ইতিমধ্যে আবেদন জানিয়েছি। সরকার আমাদের আবেদন বিবেচনা করে মহাসড়কটি প্রসস্থ করবে তা প্রত্যাশা করছি। এই দাবীতে প্রকল্প পরিচালক এবং জেলা প্রশাসকের কাছে গনস্বাক্ষরিত আবেদন করেছেন বলে জানান।


এসময় বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন ওই এলাকার বাসিন্দা সাংবাদিক জসিম উদ্দিন। সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন পরিবহন ব্যবসায়ী হাসান মিয়া, ডা. সাদেক, আব্দুল কুদ্দুস, মো. আল আমিন, আবুল কাসেম মুন্সি, হাজি বজলুর রহমান মাষ্টার প্রমুখ।

এর আগে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সামনে একই দাবিতে এলাকাবাসীর উদ্যোগে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।