সরাইলে দাঙ্গা না করার শপথ নিয়েই বাড়ি ঘরে হামলা

৩০ অক্টোবর, ২০১৯ : ১২:২৮ অপরাহ্ণ ২৫১

মোহাম্মদ মাসুদ: আবারও উত্তপ্ত সরাইলের রাজাপুর গ্রাম। রাতভর চলছে বসত ঘরে হামলা, ভাংচুর ও লুটপাট। ভয়ে গ্রাম ছেড়ে পালিয়েছে ১৫-২০ পরিবার। সংঘর্ষে আহত আবদুল্লাহ মিয়ার মৃত্যুর পরই ওই গ্রামের এ দশা। গং-এ আসামী হওয়ার ভয়ে কেউ থামাতেও এগিয়ে আসছেন না। গত সোমবার ওই গ্রামে দাঙ্গা প্রতিরোধে সমাবেশ করেছেন অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. শাহাদাৎ হোসেন টিটো। সভায় ছিলেন বর্তমান ও সাবেক চেয়ারম্যানদ্বয়। জড়ো হয়েছিলেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। সহস্রাধিক লোকের উপস্থিতিতে গ্রামবাসী আর দাঙ্গা না করার শপথ করে দেশীয় অস্ত্রও জমা দিয়েছেন। সভাস্থলে শপথ নেওয়া লোকজনের নেতৃত্বেই রাত ৮টার পরই শুরু হয়ে যায় বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাটের তান্ডব।

প্রত্যক্ষদর্শী গ্রামবাসী জানায়, সোমবার রাতের তান্ডব চোখে না দেখলে বিশ্বাস অসম্ভব। দাঙ্গা বিরোধী সভায় যারা শপথের অগ্রভাগে ছিলেন তারাই এ হামলার নেপথ্যে মূল ভূমিকা রেখেছেন। রাত ৮টর পর শুরু হয়ে ২-৩টা পর্যন্ত চলে ভাংচুর ও লুটাপাট তান্ডব। এ চিত্র দেখে সাধারণ মানুষ হেঁসেছেন। নিহত আবদুল্লাহ মিয়ার চাচাত ভাই আকাশ (৩৫) ও বাছিরের (৩৮) নেতৃত্বে ভাংচুর ও লুটপাট অব্যাহত আছে। খেলু মিয়া, আরাফাত উল্লাহ সহ ৫-৬টি বসতঘর গুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। ভয়ে বাড়িঘর ছেড়ে অন্যত্র চলে গেছে ১৫-২০টি পরিবার। সেই সাথে ওই পরিবার গুলোর প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও কলেজ পড়ুয়া ছেলে মেয়েদের পাঠদান বন্ধ হয়ে গেছে।

প্রসঙ্গত: জমির সীমানা সংক্রান্ত বিরোধের জেরে গ্রামের সাফিল মিয়ার সাথে তার প্রতিবেশী আরাফাত উল্লাহর ছোট ভাই মনির মিয়ার বাকবিতন্ডা থেকে হয় সংঘর্ষ। ওই সংঘর্ষে গুরুতর আহত আবদুল্লাহ মিয়া (৬৫) ১৩ দিন হাসপাতালে থেকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত শুক্রবার ভোরে মারা যায়। এ খবরে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে রাজাপুর গ্রামে। সে যাত্রা কোন রকমে রক্ষা করেন অরুয়াইল ফাঁড়ির পুলিশ। কিন্তু শুক্রবারে লাশ দাফনের পর রাত ১০টার পরই শুরু হয় হামলা। আবদুল্লাহ আহত হওয়ার পর তার স্বজন রফিক মিয়া (৩৭) বাদী হয়ে ২৬ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আরো ১২০ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেছিলেন। এ মামলাটিই এখন হত্যা মামলায় রুপ নিয়েছে। মামলার গং-এ ১২০ জন থাকায় আতঙ্কে আছে এখন গোটা গ্রামবাসী।

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।