নবীনগরে অসহায়ের সম্পত্তি দখলের চেষ্টা প্রভাবশালীর

২২ সেপ্টেম্বর, ২০২০ : ৪:০৫ অপরাহ্ণ ৩৯৫

মো. সফর মিয়া: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার শ্যামগ্রাম ইউনিয়নের জল্লী গ্রামে একটি অসহায় হিন্দু পরিবারের সম্পত্তি জাল দলিল করে দখলের চেষ্টার অভিযোগ করা হয়েছে। জল্লী গ্রামের মৃত রাজেন্দ্র চন্দ্র ঘোষের নাতি প্রভাবশালী সুভাষ ঘোষের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ করা হয়। পুলিশ প্রভাবশালীর পক্ষ নিয়ে ওই অসহায় পরিবার ও তার লোকজনদেরকেও চাঁদাবাজির মামলায় ফাঁসানোর হুমকিসহ দুর্ব্যবহার করার অভিযোগ আনা হয়। জল্লী গ্রামের অসহায় পরিবার মৃত হরিদাস সাহার ছেলে সুজিত সাহা অভিযুক্ত ভূমিতে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগগুলো করেন।

সুত্র জানায়,হরিদাস সাহা পৈত্রিকসুত্রে প্রাপ্ত সিএস, আর এস খতিয়ান মূলে জল্লী মৌজার সেঃমেঃ২৮৪ ও হালদাগ ৮১৭ দাগে ২৫শতাংশ ভূমির মালিক। ১৯৭১ সালে রাজেন্দ্র ঘোষের কাছে ১২ শতাংশ জায়গা মৌখিক বিক্রী করেন। কিন্তু রাজেন্দ্র ঘোষ প্রভাবখাটিয়ে গোপনে বিএসএ ২২ শতাংশ ভূমি রেকর্ড করিয়ে নেন এবং ওই দাগের পুরো সম্পত্তি দখলের চেষ্টায় ১৯৭৭ সালে একটি জাল দলিল তৈরি করেন। ওই জাল দলিলে ২৭ শতাংশ ভূমি উল্লেখ করা হয়। দলিলের সাক্ষী জল্লী গ্রামের আবুল হাসেম মাষ্টার তিনি জানেনা তিনি এ দলিলের সাক্ষী। হরিদাস সাহা ওই বিএসএ অতিরিক্ত ভূমি রেকর্ড সংশোধন ও জাল দলিলের বিরুদ্ধে ২০১৬ সালে মামলা দায়ের করেন। মামলায় ৭৭ সালে করা ৯৫০ নং সাফকবলা দলিলটি হস্তবিশারদ দ্বারা পরিক্ষা ও মূল দলিল উপস্থাপনের আবেদন জানানো হয়। এ মামলা চলমান থাকাবস্থায় সম্প্রতি প্রভাবখাটিয়ে সুভাষ ঘোষ পুলিশ নিয়ে বেশ কয়েকবার জবর দখলের চেষ্টা চালায়, বাধাঁ দিলে পুলিশ চাঁদাবাজির মামালার হুমকিসহ দুর্ব্যবহার করে। সংবাদ সম্মেলনে আ’লীগ নেতা মোসলেম উদ্দিন,শহিদুল ইসলাম সাঈদ,গোলাম রব্বানী নয়নসহ স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত মৃত রাজেন্দ্র ঘোষ-এর নাতি সুভাষ ঘোষ তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ অস্বীকার পূর্বক দলিল সঠিক দাবী করে বলেন,বিএসসহ রেকর্ড ও খাজনা সবকিছু আমাদের নামে। হরিদাস বাবু আমার দাদাকে সরেজমিন মেপে ২৭ শতাংশ জায়গা রেজিস্ট্রি করে দেন।
এ ব্যাপারে দলিলের স্বাক্ষী আবুল হাসেম মাষ্টার বলেন, এ দলিলের ব্যাপারে আমি কিছুই জানিনা,কোথায় কখন কি দলিল হয়েছে আমি অবগত নই।

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।