বাল্য বিয়ে বন্ধ করলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ইউএনও

৫ নভেম্বর, ২০২০ : ২:১৯ অপরাহ্ণ ৬৫৩

কাজী আশরাফুল ইসলাম: ১৩ বছরের এক কিশোরীর বাল্য বিয়ে বন্ধ করলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পংকজ বড়ুয়া। গতকাল বুধবার বাল্যবিবাহের অভিযোগ পেয়ে উভয় পক্ষকে ইউএনওর অফিসে তলব করেন।

পরে বৃহস্পতিবার সকালে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সরকারি কার্যালয়ে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা জীবন ভট্টাচার্য্য, সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আবুল কালাম ভুইয়া,বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কামাল হোসেনের উপস্থিতিতে তিনি বর – কনেসহ উভয় পক্ষের অবিভাবককে বাল্য বিবাহের কুফল এবং শাস্তির বিষয়ে অবহিত করেন এবং দুপক্ষকেই বিয়ে বন্ধ করার নির্দেশ প্রদান করেন। তখন উভয় পক্ষই বিয়ে বন্ধ করবেন মর্মে মুচলেকা প্রদান করেন।তাছাড়াও কিশোরীর বাবা দারিদ্র্যতার দরুন তার মেয়ের পড়াশোনা চালিয়ে নিতে অসহায়ত্ব প্রকাশ করলে ইউএনও তাৎক্ষণিকভাবে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা জীবন ভট্টাচার্য্যকে কিশোরীর পড়াশোনা চালিয়ে যেতে সরকারি সকল সুযোগ সুবিধা প্রদানের নির্দেশ প্রদান করেন। এসময় কিশোরীকে শিক্ষাসহায়ক সরঞ্জাম কেনার জন্য নগদ দুই হাজার টাকা প্রদান করেন।

বাল্যবিবাহ থেকে রক্ষা পাওয়া কিশোরীর নাম সায়মা আক্তার। সে নাটাই উত্তর ইউনিয়নের বেহাইর গ্রামের জুরু মিয়ার মেয়ে। সায়মা বটতলী বাজার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী।

উল্লেখ্য, আগামীকাল শুক্রবার তার বিয়ের দিন ধার্য্য ছিল এবং ইতিমধ্যে বিয়ের সকল পূর্ব প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছিল।শেষ মুহূর্তে তার বিয়ে ভেঙে যাওয়ায় এবং নতুন করে পড়াশোনা চালিয়ে যাবার সুযোগ পাওয়ায় সে আবেগে আপ্লূত হয়ে পড়ে এবং ইউএনওকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পংকজ বড়ুয়া তেপান্তরকে বলেন, বর্তমান সরকার বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ এবং মেয়েদের শিক্ষার উপর সর্বোচ্চ গুরুত্ব প্রদান করছে।সরকারি ভাবে স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীদেরকে উপবৃত্তি প্রদানসহ বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা প্রদান করছে।কিন্তু অবিভাবকদের দারিদ্র্যতা,অজ্ঞতা এবং সামাজিক কুসংস্কারসহ সচেতনতার অভাবে প্রায় প্রতিদিনই কোথাও না কোথাও বাল্যবিবাহ হচ্ছে এবং অনেক শিক্ষার্থী শিক্ষাজীবনের মাঝপথে ঝরে পড়ছে।তবে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ও উপজেলা প্রশাসন বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে নজরদারি জোরদার করেছে এবং গত মাসে ১২ টি বাল্যবিবাহ প্রতিরোধসহ একাধিক ব্যাক্তিকে জেল জরিমানা করা হয়েছে।তিনি বাল্যবিবাহের বিরুদ্ধে সবাইকে সামাজিকভাবে আন্দোলন গড়ে তোলার আহবান জানান। “

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।