বিজয়নগর পুলিশের বিরুদ্ধে অপেশাদার আচরনের অভিযোগ, জিডি-মামলা নিচ্ছেনা পুলিশ

২৫ নভেম্বর, ২০২০ : ৯:২০ অপরাহ্ণ ১৩৮১
বিজয়নগর থানা

তেপান্তর রিপোর্ট: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগরে পুলিশের সহযোগীতা চাইতে যাওয়া এক ভুক্তভোগীর সাথে পুলিশ অপেশাদার আচরন করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ নিয়ে গত ১৮ নভেম্বর ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রশাসক বরাবর পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ দিয়েছেন বিল্লাল মিয়া নামে এক ভুক্তভোগী। বিল্লাল সংঘবদ্ধ বলৎকারের শিকার হয়ে বিচারের আশায় এখন ধারে ধারে ঘুরছেন। পুলিশ তাকে কোন প্রকাশ সহযোগীতা করছেনা বলে অভিযোগ। বিল্লালের বাড়ি হবিগঞ্জের মাদবপুর উপজেলার ঘিলাতলী গ্রামে। তবে কাজের সূত্রে তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগরে থাকেন। এছাড়াও গত ২৩ নভেম্বর বিল্লালের বলৎকারের মামলার প্রথম সাক্ষি সামিরুলকে পরিমল কর্মকার ও লিটন কর্মকার (আসামী) বলৎকারের মামলা প্রত্যাহারের জন্য হুমকি দেন। মামলা না প্রত্যাহার করলে খুন করে লাশ গুম করে ফেলা হবে বলেও হুমকি দেওয়া হয়। ২১ তারিখে এই ঘটনার পর ২৩ তারিখে থানায় জিডি করতে গেলে সামিরুলের জিডি নেয়নি বিজয়নগর থানা পুলিশ।

এদিকে জেলা প্রশাসককে দেওয়া বিল্লালের অভিযোগ পত্র ও খোজ খবর নিয়ে জানা গেছে, গত ৩ নভেম্বর রাতে বিজয়নগরের চাষ্ষা মোড়া গ্রামে বিল্লাল তার কর্মস্থল মৎস খামার পাহাড়া দিচ্ছিল। এসময় যুবলীগ নেতা কাউছার ও তার বন্ধু মোহাম্মদ আলী,পরিমল,লিটন ও মাহবুব বিল্লালকে জুসের সাথে চেতনানাশক খাইয়ে বেহুশ করে বলৎকার করে। পরবর্তীতে এ বিষয়ে বিজয়নগর থানায় মামলা করতে গেলে থানা মামলা নেয়নি। পরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া চীফ জুডিসিয়াল মেজিস্ট্র্যাট আদালতে মামলা করতে গেলে ৯ নভেম্বর আদালত বিজয়নগর থানাকে ঘটনার প্রাথমিক সত্যতা পেলে মামলা গ্রহন করে পরবর্তী ৩০ দিনের মধ্যে আদালতে অবগতীকরন প্রতিবেদন দাখিল করতে নির্দেশ দিয়েছেন। কিন্তু আদালতের এই নির্দেশনার পরই পুলিশ তদন্তের নামে টালবাহানা শুরু করেছে। মামলার বিষয়ে খোজ খবর নিতে গেলে আইও ইসলামপুর ফাড়ির ইনচার্জ আতিকুর রহমান খারাপ আচরন করে তাড়িয়ে দেন। বিজয়নগর থানার ওসি আতিকুল ইসলামের কাছে গিয়েও আশার কোন কথা শুনা যায়না।

বাদি বিল্লাল বলেন, আদালতের নির্দেশে প্রাথমিক সত্যতা পেলে মামলা গ্রহন করার কথা বলা থাকলেও এখনো পুলিশ মামলা গ্রহন করেনি। পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে ৩০ দিন পর। অথচ ৩০ দিন পর আদালতে অবগতীকরন রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে,মামলা গ্রহন করতে ৩০ দিন সময় দেওয়া হয়নি। প্রাথমিক সত্যতা পেলেই মামলা আগে গ্রহন করতে বলা হয়েছে। আদালতের নির্দেশের ১৬ দিন পার হয়ে গেলেও এখনো কিভাবে পুলিশ প্রাথমিক সত্যতা পায়না তা আমি বুঝিনা। তদন্তের কতটুকু কি হলো আমি একজন ভুক্তভোগী হিসেবে পুলিশ আমাকে তাও জানায়না।

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

  • 81
    Shares