পলু দিবস শুধু ব্রাহ্মণবাড়িয়ারই নয়, এটি জাতীয় জেলা আন্দোলন দিবস

২৮ নভেম্বর, ২০২০ : ৯:০২ অপরাহ্ণ ১১৩

তেপান্তর রিপোর্ট : ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারী কলেজের বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র ওবায়দুর রউফ পলুর শাহাদাৎ বরণের মাধ্যমে অর্জিত ঐতিহাসিক ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আন্দোলন দিবস শুধু ব্রাহ্মণবাড়িয়ারই নয়, এটি জাতীয় ওজলা আন্দোলন দিবস। কারণ, এই আন্দোলনের ফলাফলেই সারা বাংলাদেশের ৪৫টি মহকুমা এক সাথে জেলা ঘোষণা করেছিল তৎকালীন (১৯৮৩-৮৪) সরকার ।

এর প্রেক্ষিতেই ব্রাহ্মণবাড়িয়াসহ নতুন জেলা গুলোতে সরকারী কর্মকর্তারা প্রশাসনিক ও জেলা পর্যায়ের সকল অফিসে জেলা পর্যায়ের কর্মকর্তার মর্যাদার আসনে দায়িত্ব পালন করতে পারছেন বর্তমানে। নয়তো তারা মহকুমা কর্মকর্তাই থাকতেন। তাই ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে জেলা উন্নয়ন পরিষদের সাথে সমন্বয় রেখে আগামী বছর হতে ঐতিহাসিক ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আন্দোলন ও এ আন্দোলনে শহীদ ওবায়দুর রউফ পলু দিবস যথাযথ মর্যাদায় উদযাপনে অগ্রণী ভূমিকা পালন করা উচিৎ। ৩৮ তম ঐতিহাসিক ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আন্দোলন ও শহীদ ওবায়দুর রউফ পলু দিবস উদযাপন উপলক্ষে ২৭ নভেম্বর শুক্রবার ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা উন্নয়ন পরিষদের উদ্যোগে গৃহিত দিনব্যাপী কর্মসূচীর সমাপনী পর্বে বাদ এশা বঙ্গবন্ধু স্কয়ারে জাতীয় বীর আবদুল কুদ্দুস মাখন পৌর মুক্ত মঞ্চ চত্বরে আয়োজিত আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে বক্তারা এ কথা বলেন।

বক্তারা জেলা প্রশাসনের প্রতি পলুর স্মৃতি রক্ষায় আগামী বছর হতে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৩ দিনব্যাপী ওবায়দুর রউফ পলু মেলা আয়োজনের দাবি জানান।
জেলা উন্নয়ন পরিষদের গৃহিত কর্মসূচী অনুসারে এদিন ভোর হতে সুবিধাজনক সময়ে ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে ওবায়দুর রউফ পলুর বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনায় প্রার্থনা, কালোব্যাজ ধারণ, শহরতলীর শেরপুরস্থ হযরত মীর শাহাবুদ্দিন (রাঃ) মাজার সংলগ্ন কবর স্থানে পলুসহ প্রয়াত সকল মুসলমানের কবর জিয়ারত, দোয়া মোনাজাত কর্মসূচী পালিত হয়।

জাতীয় বীর আবদুল কুদ্দুস মাখন পৌর মুক্ত মঞ্চ চত্বরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা উন্নয়ন পরিষদের সভাপতি ও সাবেক পৌর কাউন্সিলর আহসান উল্লাহ হাসান এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথি ছিলেন বিশিষ্ট সুরকার গীতিকার দেওয়ান দিদারুল আলম মারুফ। বিশেষ অতিথি ছিলেন অন্নদা সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক এ. এফ. এম আবদুস সাকির ছোটন। জেলা উন্নয়ন পরিষদের যুগ্ম সম্পাদক মোঃ বাবুল চৌধুরীর সঞ্চালনায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট সমাজ সেবক কমরেড নজরুল ইসলাম, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা উন্নয়ন পরিষদের সহ-সভাপতি সাংবাদিক মোঃ আবুল হাসনাত অপু, সাধারণ সম্পাদক আলী মাউন পিয়াস, সাবেক সভাপতি মীর মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল, সাবেক সাধারণ সম্পাদক সরকারী কলেজ ছাত্র সংসদের সাবেক জি এস আরমান উদ্দিন পলাশ, জেলা কার্যনির্বাহী সদস্য এড. শেখ জাহাঙ্গীর, শরীফ আহমেদ খান, মাওলানা মোঃ ইসহাক, সদর উপজেলা উন্নয়ন পরিষদের সভাপতি রাজিবুল হাসান, সহ-সভাপতি হারুন অর রশিদ, সাধারণ সম্পাদক জিয়া কারদার নিয়ন, সাংগঠণিক সম্পাদক মাইনুল হোসেন রাজু প্রমুখ। উপস্থিত ছিলেন জেলা উন্নয়ন পরিষদের সহ-সভাপতি এজাজ আহমেদ মনির, সাংগঠণিক সম্পাদক কামরুল হাসান নান্টু, প্রচার সম্পাদক ইকরাম হোসেন, প্রকাশনা সম্পাদক আলী হায়দার তুষার, মোঃ বশির আহম্মেদ, মোঃ আরমান উদ্দিন, কাজী খোকন, মোঃ নজরুল আলম, মোঃ ফয়েজ মিয়া, এহসান উল্লা মাসুদ, ইয়াছিন সরকারসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিগণ।দোয়া ও মোনাজাত পরিচালনা করেন ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক মাকসুদুল আলম দেলোয়ার। জেলা উন্নয়ন পরিষদ নেতৃবৃন্দ সংগঠণের অসুস্থ সাবেক সভাপতি মোখলেছুর রহমান জীবনকে দেখতে তার বাসায় যান এবং তার সুস্থতা কামনা করেন ।

বক্তারা বলেন, পলুর আত্মত্যাগ সবাইকে চিরদিন মনে রাখতে হবে। ট্রেনের টিকিট কালোবাজারী বন্ধে প্রশাসনকে আরও সক্রিয় হতে হবে। জেলা সদর আধুনিক হাসপাতাল দালাল মুক্ত রেখে রোগীদের সুষ্ঠু চিকিৎসা সেবা দিতে হবে। বিদ্যুৎ গ্যাস তেল ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য মূল্য সাধারণ মানুষের সামর্থের মধ্যে রাখার ব্যবস্থা নিতে হবে। বক্তারা পলুর বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে মহামারী করোনা ভাইরাস মুক্ত থাকতে সবাইকে মাস্ক ব্যবহারসহ সচেতন থাকা এবং জেলার সার্বিক উন্নয়ন ও শান্তিশৃংখলা বজায় রাখতে সবাইকে জেলা উন্নয়ন পরিষদের সহায়তায় এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

  • 10
    Shares