সরাইলে ঈদে মিলাদুন্নবী (ﷺ) উপলক্ষে ছাত্রসেনার আলোচনা সভা ও জশনে জুলুছ

৯ নভেম্বর, ২০১৯ : ১০:০৮ অপরাহ্ণ ৩৯৩

তেপান্তর রিপোর্ট: ঈদে মিলাদুন্নবী (ﷺ) উপলক্ষে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা সরাইল পাকশিমুল ইউনিয়ন শাখার উদ্যোগে ১১ রবিউল আওয়াল ১৪৪১ মোতাবেক ০৯ নভেম্বর-১৯ শনিবার সকাল ১০ ঘটিকায় সরাইল পাকশিমুল পূর্বপাড়া পাকপাঞ্জতন জামে মসজিদে আলহাজ্ব মুহাম্মদ আবু সিদ্দিকের সভাপতিত্বে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার সভাপতি পীরে তরিকত অধ্যাপক মুফতি মুহাম্মদ নাজিম উদ্দিন আল-ক্বাদরী। তিনি বলেন পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (ﷺ) হল সকল ঈদের সেরা ঈদ। ১২ই রবিউল আওয়ালে যদি দুজাহানের বাদশা নবীর শুভাগমন না হত তবে ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আযহা সহ কোন আনন্দের দিন আমরা পেতাম না। তারা বলেন ঈদে মিলাদুন্নবী (ﷺ) উদযাপন করা মুস্তাহাব বা মুস্তাহসান। তাই ঈদে মিলাদুন্নবী (ﷺ) উদযাপনে যে বা যারা বাধা সৃষ্টি করছে ও ঈদে মিলাদুন্নবী (ﷺ) কে নিয়ে কটুবাক্য ব্যবহার করছে তারা এখনো ইসলামের সঠিক শিক্ষায় শিক্ষিত হতে পারেনি। আল্লাহ তায়ালা তাদের কে ইসলামের সঠিক শিক্ষা অর্জন করার তাউফিক দান করুক।

বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার সহ-সাধারণ সম্পাদক পীরে তরিকত অধ্যাপক মুফতি রফিকুল ইসলাম রেজভী, সরাইল উপজেলা আহলে সুন্নাত ওয়াল জামা’আত বাংলাদেশ এর সদস্য মুফতি মুখলেসুর রহমান আল-ক্বাদরী, ইউনিয়ন আহলে সুন্নাত ওয়াল জামা’আত বাংলাদেশ এর আহবায়ক শাহ মুহাম্মদ শফি চিশতী, বাংলাদেশ ইসলামী যুবসেনা সরাইল উপজেলার সভাপতি হাফেজ মুহাম্মদ শাহাদত হোসাইন, মসজিদের সভাপতি মুহাম্মদ শহিদ মিয়া, সাধারণ সম্পাদক ডা. মুহাম্মদ আবিদুর রহমান।

প্রধান বক্তা ছিলেন বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা কেন্দ্রীয় পরিষদের সাবেক দাওয়া বিষয়ক সম্পাদক ও জেলার সাবেক সফল সভাপতি শিক্ষানবিশ আইনজীবী মুহাম্মদ রফিকুল ইসলাম। তিনি বলেন সরকারি খরচে ওলামায়ে কেরামদের পবিত্র হজ্বে নিয়ে যাওয়া প্রসঙ্গে ধর্মপ্রতিমন্ত্রী শেখ আবদুল্লাহ ঘেউ ঘেউ করা কুকুর অাখ্যায়িত করে শুধু আলেমদের অবমাননা করেননি বরং তিনি পবিত্র ইসলাম ও হজ্বকে অবমাননা করছেন। তিনি বলেন এর আগেও হজ্বকে নিয়ে লতিফ সিদ্দিকি এমন বক্তব্য দিয়েছিল যার ফলে তার মন্ত্রীত্ব সহ সংসদ সদস্যপদ বাতিল হয়ে যায়। আজ আরাও সেই হজ্বকে নিয়ে কটুক্তি করলেন ধর্মপ্রতিমন্ত্রী শেখ আবদুল্লা। তিনি পবিত্র হজ্ব ও ওলামায়ে কেরামের শানে কটুক্তিকারী ধর্মপ্রতিমন্ত্রী শেখ আবদুল্লাহ দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তি ও তার মন্ত্রীত্ব থেকে বহিষ্কার দাবি করে প্রধানমন্ত্রীর নিকট এই বক্তব্যের সুষ্ঠ সমাধান কামনা করেন। তিনি আরও বলেন প্রায় ২০০ জন আলেমদের মধ্যে মাত্র কয়েকজন সুন্নী আলেমকে হজ্ব করার সুযোগ দিয়ে সুন্নীদের প্রতি শুরু থেকে ধর্মপ্রতিমন্ত্রীর বে-ইনসাফী ও বিদ্বেষ মনোভাব তার এ বক্তব্যে ফুটে তুলেছে। ভবিষ্যতে যেন আর এমন বে-ইনসাফী ও বিদ্বেষ মনোভাব প্রকাশ না হয় সে দিকেও সরকারের নজরদারির দাবি জানান।বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা পাকশিমুল ইউনিয়ন শাখার সাধারণ সম্পাদক হাফেজ আল ইসলাম এর সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন সাংগঠনিক সম্পাদক মুহাম্মদ কুতুব উদ্দিন, মসজিদের ইমাম হাফেজ মুহাম্মদ সায়া’দ হোসাইন, হাফেজ মুহাস্তাকিম আহমেদ, মুহাম্মদ আক্কল আলী, হাফেজ মুহাম্মদ শহিদুল্লাসহ প্রমুখ।

এর আগে ঈদে মিলাদুন্নবী (ﷺ) উপলক্ষে নবী ও অলি প্রেমিকদের নিয়ে আয়োজিত জশনে জুলুছটি পাকশিমুল পূর্বপাড়া পাকপাঞ্জতন জামে মসজিদ থেকে শুরু হয়ে অরুয়াইল বাজার হয়ে পুনরায় মসজিদে এসে সমাপ্তি করা হয়।

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।