ব্যাপক ভোট কারচুপি,এজেন্টদের বের করে দেওয়া ও বর্জনের আখাউড়া পৌরসভা নির্বাচন

১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ : ১২:৪২ অপরাহ্ণ ১৩০৬
গোপন কক্ষের বাইরে ইভিএম মেশিন। এখানে আগে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে গোপন কক্ষে ঢুকতে হয়।

তেপান্তর রিপোর্ট: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া পৌরসভার নির্বাচনে প্রকাশ্যে নৌকা মার্কায় ইভিএম’এ ভোট দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। তাছাড়া স্বতন্ত্র প্রার্থীর এজেন্টকে বের করে দেওয়া ও বিএনপির প্রার্থীর এজেন্ট কে কেন্দ্রে ঢুকতে না দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। তবে প্রত্যেকটি ভোট কেন্দ্রে ভোটারদের ব্যাপক উপস্থিতি লক্ষ্য করা গেছে।

৪র্থ ধাপে রোববার (১৪ ফেব্রুয়ারি) আখাউড়া পৌরসভায় সকাল ৮টা থেকে ভোট শুরু হয়। ভোটগ্রহণ চলবে একটানা বিকেল ৪টা পর্যন্ত।

বিদ্রোহী মেয়র প্রার্থী নুরুল হক ভুইয়া বলেন, তারা (নৌকার লোকজন) প্রকাশ্যে ইভিএম এ ভোট দিচ্ছে। বিষয়টি আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর সামনেই হচ্ছে।

আরেক বিদ্রোহী প্রার্থী মোঃ সফিকুল ইসলাম ব্যাপক কারচুপির অভিযোগ এনে তিনি ভোট বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন।
ইতোমধ্যে কেন্দ্রগুলোতে ভোটাররা তাদের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে ভিড় এবং বিশাল লাইন দেখা গেছে।

সকাল সাড়ে ৯টার দিকে আখাউড়া রেলওয়ে উচ্চ বিদ্যালয়ের একটি কেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায়, নৌকা প্রতীকের মেয়র প্রার্থীর লোকজন ইভিএম মেশিন গোপন কক্ষের বাইরে রেখে প্রকাশ্যে ভোট দিচ্ছেন। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ওই কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার আব্দুল কুদ্দস বলেন, আমি শোনার পর ইভিএম মেশিনটি ভেতরে রেখে আসি।

ধানের শীর্ষের প্রার্থী আলহাজ্ব জয়নাল আবেদীন আব্দু সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করে বলেন, আমার এজেন্টদের কে তাকজিল খলিফা কাজলের ভাই দানিছ খলিফা ধাক্কা দিয়ে বের করে দিয়েছে। অন্যন্যা কেন্দ্রে ঢুকতে দেয়নি। আমি তৎক্ষনাৎ প্রশাসন কে জানালেও তারা কোন ব্যাবস্থা নেয়নি। তিনি আরো বলেন, আমার গাড়ীও ভাংচুর করেছে তারা।

আখাউড়া উপজেলা সহকারী নির্বাচন অফিসার জহিরুল আলম বলেন,আমার কাছে কেউ কোন অভিযোগ দায়ের করেনি তাছাড়া প্রতি ভোটকেন্দ্রে একজন করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করছেন। নির্বাচনে মেয়র পদে ৪ জন, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৪০ জন ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর ১০ জনসহ ৫৪ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। আখাউড়া পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডে ২৮ হাজার ৯০৫ জন ভোটার রয়েছে। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১৪ হাজার ২৩০ জন ও নারী ভোটার ১৪ হাজার ৬৭৫ জন। এবিষয়ে নৌকার প্রার্থী তাকজিল খলিফা কাজল সাংবাদিকদের বলেন, এসব অভিযোগ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। তিনি আরো বলেন, ভোটাররা শান্তি পূর্ণ ভাবে ভোট দিচ্ছেন, তাদের পরাজয় নিশ্চিত জেনে এসব অপপ্রচার করছে।

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

  • 526
    Shares