দীর্ঘদিনের লালিত স্বপ্ন পূরণ হতে যাচ্ছে নবীনগরের ইসলামপুরবাসির

১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ : ২:১২ অপরাহ্ণ ৩৬৫

মো. সফর মিয়া: ব্রা‏হ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার ৭নং নবীনগর পশ্চিম ইউনিয়নের লাপাং হতে ইসলামপুর পর্যন্ত দেড় কিলোমিটার মাটির রাস্তাটি নতুন করে পিচ ঢালাইয়ের সড়ক নির্মাণ কাজের টেন্ডার সম্পন্ন হয়েছে। এই খবরে এলাকাবাসীর মনে স্বস্তি ফিরে এসেছে।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে ওই এলাকাসহ পাশের রায়পুরা থানার হাজার হাজার জনসাধারণ ১,১২০ মিটারের দীর্ঘ এই মাটির ভঙ্গুর রাস্তাটি দিয়ে চলাচল করে আসছে। বর্ষাকালে সড়কটি পানিতে তলিয়ে গেলে নৌকাই হয় একমাত্র ভরসা। এছাড়া শুস্ক মৌসুমে সামান্য বৃষ্টি হলে সড়কটি দিয়ে চলাচলে অনুপযোগী হয়ে পড়ে। সড়কটির মাঝখানে ডুবের চক নামক এলাকায় একটি খালের উপর থাকা ব্রীজটি আজও পর্যন্ত এলাকাবাসী স্বাভাবিকভাবে ব্যবহার করতে পারছে না। প্রায় ৩০ বছর পূর্বে ব্রীজটি নির্মিত হলেও বর্তমানে এটির অবস্থা একেবারে নাজুক। ব্রীজের দুই পাশে বাঁশের মাঁচা তৈরি করে প্রতিনিয়ত জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বয়োবৃদ্ধ, মুমূর্ষ রোগী, গর্ভবতী মহিলা, শিশু, স্কুল-কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থীরা চলাচল করছে। প্রায় সময় ব্রীজটি দিয়ে পারাপার হতে গিয়ে ঘটেছে নানান দূর্ঘটনা।

উপজেলা প্রকৌশলী অফিস সূত্রে জানা যায়, গেল ১৭ ফেব্রুয়ারী বুধবার বিকেলে ওই জরাজীর্ণ ব্রীজটিসহ মাটির রাস্তাটি নতুন করে পিচঢালাই নির্মাণ কাজের টেন্ডার সম্পন্ন হয়েছে। এ খবরে এলাকাবাসীর মনে যেন স্বস্তি ফিরে এসেছে। এলাকাবাসী বলছে স্বাধীনতার পর থেকে এই অঞ্চলের মানুষজন খুব কষ্ট করে উপজেলা সদরসহ জেলা সদরে যাতায়াত করে আসছে। সড়ক ও ব্রীজটি নতুন করে নির্মিত হলে তাদের দীর্ঘদিনের দুঃখ-কষ্ট লাঘব হবে বলে মনে করছেন এলাকাবাসী।

এ ব্যাপারে নবীনগর ৭নং পশ্চিম ইউপির চেয়ারম্যান মো. ফিরোজ মিয়া বলেন, ইসলামপুর, চরলাপাং ও লাপাংসহ পাশের রায়পুরা থানার হাজারো মানুষের একমাত্র ভরসা এই সড়কটি টেন্ডার সম্পন্ন হয়েছে আশা করছি খুব দ্রুত কাজ শুরু হবে।

এ ব্যাপারে নবীনগর উপজেলা প্রকৌশলী মোহাম্মদ নুরুল ইসলাম বলেন, ১,১২০ মিটার দৈর্ঘ্য ও ৩ মিটার প্রস্থ সড়ক এবং সাড়ে ৪ মিটার দৈর্ঘ্য ও ৩.৬ মিটার প্রস্থের একটি কালভার্ট নির্মাণের টেন্ডার প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে। যার মোট প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয়েছে ১ কোটি ৫০ লক্ষ ৭৮ হাজার ৩১৭ টাকা। আশা করছি আগামী মার্চ মাসের মাঝামাঝি এর কাজ শুরু হবে।

এ বিষয়ে নবীনগর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান মনির বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশের রূপকার দেশনেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আস্থাভাজন আমাদের স্থানীয় সাংসদ মোহাম্মদ এবাদুল করিম বুলবুল মহোদয়ের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় এই সড়কটির নতুন নির্মাণ কাজের টেন্ডার সম্পন্ন হয়েছে। সড়ক ও কালভার্ট নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হলে যোগাযোগ ব্যবস্থায় ওই এলাকার জনসাধারণের জন্য একটি নতুন দ্বার উন্মোচিত হবে।

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

  • 217
    Shares