বিজয়নগরে এক ব্যক্তিকে মাদক দিয়ে ফাসানোর অভিযোগ পুলিশের বিরুদ্ধে

২২ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ : ১১:৩৭ অপরাহ্ণ ৬২১

তেপান্তর রিপোর্ট: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগরে পুলিশের বিরুদ্ধে টাকা ছিনতাইয়ের চেষ্টা করার অভিযোগ উঠেছে। শুধু তাই নয়, ছিনতাই করতে না পেরে মাদক মামলায় ফাসানোর চেষ্টা করা হচ্ছে বলে অভিযোগ। এঘটনায় পুলিশ সদস্যদের স্থানীয় জনতা অবরুদ্ধ করে রাখার কয়েকটি ভিডিও তেপান্তরের হাতে এসেছে। এঘটনায় পরে অতিরিক্ত পুলিশ গিয়ে তাদেরকে উদ্ধার করে। তখন নূর নবী নামে একজনকে আটক করা হয়েছে। সোমবার সন্ধ্যায় (মাগরিবের সময়) বিজয়নগরের ফুলতলী মোড়ে এই ঘটনা ঘটে।

অভিযোগ উঠেছে, হবিগঞ্জের মাধবপুরের ধর্মগর গ্রামের আলী আকবরের ছেলে নূর নবী বিজয়নগরের আব্দুল্লাহ পুর গ্রামে তার আত্নীয়ের বাড়িতে যাচ্ছিলেন। তখন ফুলতলী মোড়ে পৌছলে সোর্স দুলালের সহায়তায় পুলিশ তাকে থামায়। তখন পুলিশ সদস্য ও সোর্স দুলাল নূর নবীর শরীর তল্লাশি করার সময় নূর নবীর কাছে ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা, দুইটি মোবাইল ও একটি সিগারেটের প্যাকেট পায়। টাকাগুলো পুলিশ সদস্যরা ছিনিয়ে নিতে চেষ্টা করেন। এসময় নূর নবী সিগারেটের প্যাকেট ও মোবাইল ফেলে দিয়ে টাকা গুলো নিয়ে “বাচাও বাচাও” বলে দৌড়ে পালিয়ে যেতে চেষ্টা করেন। কিন্তু কিছু দূর যাওয়ার পর তাকে ধরে ফেলা হয়। এর প্রায় ৩/৪ মিনিট পর র্সোস দুলাল সিগারেটের প্যাকেট হাতে নিয়ে এসে বলছে ভিতরে ইয়াবা। কিন্তু পুলিশ সরাসরি নূর নবীর কাছ থেকে ইয়াবা উদ্ধার করতে পারেনি। সোর্স দুলাল সিগারেটের প্যাকেটের ভিতর ইয়াবা ঢুকিয়ে নূর নবীকে ফাসাতে চেষ্টা করে। তখন পুলিশ নূর নবী নয় বরং সোর্স দুলালের হাত থেকে ইয়াবা উদ্ধার করেছে। কিন্তু মাদক মামলায় ফাসানোর চেষ্টা করা হচ্ছে নূর নবীকে। এসময় স্থানীয় জনতা দায়ীত্বরত এস আই রশীদ ও সঙ্গীয় ফোর্সকে অবরুদ্ধ করে জরুরী সেবা ৯৯৯ নম্বরে ফোন করেন। পরে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে অবরুদ্ধ পুলিশ সদস্যসহ নূর নবীকে থানায় নিয়ে যান। এসব অভিযোগ করেন নূর নবীর আতœীয় মো: ফয়সাল। তিনি আরো বলেন,সোর্সের কথামতো পুলিশ মূলত নূর নবীর কাছ থেকে টাকা ছিনতাই করতে এসেছিল। পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে মঙ্গলবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আদালতে ছিনতাই মামলা করার প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে বলেও জানান ফয়সাল।

কিন্তু এবিষয়ে এস আই রশীদের সাথে তেপান্তরের পক্ষ থেকে ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি সঠিক ভাবে কোন প্রশ্নের উত্তর দেননি। টাকা ছিনতাই করার চেষ্টার অভিযোগের ব্যপারে বক্তব্য জানতে চাইলে তিনি উত্তর না দিয়ে বলেছেন, ঘটনার ভিডিও আছে, এবিষয়ে এসপি স্যারের কাছে কাগজ পাঠিয়েছি, ওসি স্যারও জানেন। নূর নবীর কাছ থেকে ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে নাকি সোর্স দুলালের হাত থেকে ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে এমন প্রশ্ন করা হলে তিনি একই ভাবে এড়িয়ে গেছেন এবং তার স্যারদের সাথে এবিষয়ে কথা বলতে বলেছেন। তবে তিনি এটাও বলেছেন, অভিযুক্ত নূর নবীকে ইয়াবাসহ ধরেছি,তার বিরুদ্ধে মামলা হচ্ছে। তাদেরকে অবরুদ্ধ করে রাখা হয়েছিল কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে এস আই রশীদ বলেন, “অবরুদ্ধ করেনি, তবে মালামাল ধরা হলে হুড়াহুড়ি হওয়াটা স্বাভাবিক।

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

  • 231
    Shares