প্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ: ধর্ষক বৃদ্ধকে আটক করেছে পুলিশ

৬ মার্চ, ২০২১ : ৯:৩৩ অপরাহ্ণ ৩৮৯

তেপান্তর রিপোর্টঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলায় এক বাক প্রতিবন্ধী কিশোরীকে(১৫) ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে।ধর্ষণের অভিযোগের প্রেক্ষিতে শুক্রবার রাতে আব্দুস সাত্তার(৬০) নামের বৃদ্ধকে আটক করেছে পুলিশ। শুক্রবার(৫ মার্চ) রাত সাড়ে ৮টার দিকে বিজয়নগর উপজেলার টিঘর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

শনিবার বিকেলে আব্দুস সাত্তারকে আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করেন সরাইল থানা পুলিশের পরিদর্শক কবির হোসেন।

আটক আব্দুস সাত্তার ওই এলাকার মৃত জয়দর আলীর ছেলে।

প্রতিবন্ধীর মা জানান, তার মেয়েকে নিয়ে গ্রামের যে জায়গাতে বসবাস করে, তা অনেকটা নীরব ও নিরিবিলি। তার তিন মেয়ে ও এক ছেলের সন্তান রয়েছে। এরমধ্যে বড় মেয়েটিকে বিয়ে দিয়েছি ও ২য় মেয়েটি জন্ম থেকে বাক প্রতিবন্ধী। তার স্বামী মারা যাওয়ার পর বাকী দুই মেয়ে ও ছোট ৫ বছরের ছেলেকে দিয়ে মানুষের সহযোগিতায় খেয়ে দেয়ে কোনভাবে বেঁচে আছে। গত শুক্রবার রাত ৮টার দিকে তার প্রতিবন্ধী মেয়েটি বাথরুমে যেতে ঘর থেকে বের হয়। এর অনেকক্ষণ পর তাকে খোঁজ করে পাচ্ছিল না। তিনি জানান, উনি ঘর থেকে বের হয়ে দেখে তার মেয়ে হেঁটে আসছে। কাছে আসার পর শরীরের কাঁদা লাগানো ছিল। সে মুখে কিছু না বলতে পেরে আমার হাত ধরে স্থানীয় বাজারে নিয়ে যায়। সেখানে একটি সেলুনে আব্দুস সাত্তারকে দেখে সেখানে আমার মেয়ে ঢুকে তাকে দেখিয়ে দেয়। পরে বিষয়টি বুঝতে পেরে আমি সহ উপস্থিত অন্যান্যরা সাত্তারকে ধরার চেষ্টা করলে সে দৌড়ে পালিয়ে যায়।

তিনি আরও বলেন, এই সাত্তার তার বাড়ির পাশের জমিতে পানির সেচ দেওয়া মেশিনে রাতে পানি দিচ্ছিল। এসময় তার প্রতিবন্ধী মেয়েকে ধর্ষণ করে। এই ঘটনায় সে স্থানীয় মেম্বারকে জানালে, তিনি আপোষ করার চেষ্টা করেন। কিন্তু আমি থানায় গিয়ে বিষয়টি জানালে রাতেই আব্দুস সাত্তারকে আটক করে পুলিশ।

সরাইল থানা পুলিশের পরিদর্শক (তদন্ত) কবির হোসেন জানান, বিষয়টি জানার পর পুলিশ রাতেই আব্দুস সাত্তারকে আটক করে। কিশোরীটিকে জেলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। এই ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।