চাচার জায়গা ছাড়তে নারাজ ভাতিজা,প্রতিবাদ করায় হামলা

১৫ মার্চ, ২০২১ : ৭:২২ অপরাহ্ণ ৫৭১
হামলায় আহত হাবিবুর রহমানের এক ছেলে।

তেপান্তর রিপোর্ট: ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার তেলিনগর গ্রামে জায়গা দখলের ঘটনাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। ১৪ মার্চ রোববার তেলিনগর গ্রামের নানা শাহ মাজার এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষে দুই পক্ষের অন্তত ৬ জন আহত হয়েছে। এঘটনায় দুই পক্ষই থানায় মামলার এজাহার জমা দিয়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে খোজ নিয়ে জানা গেছে, তেলিনগর মাজারের পাশে হাবিবুর রহমান ও ইসহাক মিয়া নামে আপন দুই ভাইয়ের বাড়ি। সেখানেই রাস্তার সাথে হাবিবুর রহমানের ৪ শতক জায়গায় ইসহাক মিয়ার ছেলেরা চাচা হাবিবুর রহমানকে জায়গার ভাড়া দিয়ে গত ৩ বছর যাবৎ দোকানদারী করছেন। বর্তমানে হাবিবুর রহমান এখানে বড় পরিসরে দোকান নির্মান করবে বলে তার ভাতিজা ফারুক ও আলি মিয়াকে দোকান ছাড়তে বলেন। দোকান তৈরি হবার পর পুনরায় এখানে দোকান ভাড়া দিয়ে ব্যবসা করার কথা বলেন। কিন্তু ইসহাক মিয়ার ছেলেরা এই জায়গাটি নিজেদের দাবী করে জায়গার দখলদারীত্ব ছাড়তে অস্বীকৃতি জানায়। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে চাচাতো ভাইদের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। এতে দুই পক্ষের অন্তত ৬ জন আহত হয়েছে। আহতরা হলো, হাবিবুর রহমানের ছেলে হাফেজ উসমান,হাফেজ সালমান, মাইনুদ্দিন ও আব্দুল খালেক। অপরদিকে ইসহাক মিয়ার আহত ছেলেরা হলো, ফারুক ও আলি মিয়া।

তবে হাবিবুর রহমান দাবী করেছেন, ইসহাক মিয়ার ছেলেরা আগে তাদের উপর হামলা করায় তার ছেলেরা আতœরক্ষা করার চেষ্টা করেছে। তার ছেলেরা যেহেতু হাফেজ মাওলানা তাই তাদের কারো উপর হামলা করার মানসিকতা নেই।

এবিষয়ে ইসহাক মিয়ার বাড়িতে গিয়ে কোন পুরুষ লোক পাওয়া যায়নি, তবে ইসহাক মিয়ার মেয়ে হোসনা বেগম বলেছেন, যেই স্থানে আমার ভাইয়েরা দোকান দিয়েছিল সেটি হাবিবুর রহমান চাচার এবং আমরা সেই জায়গার ভাড়া চাচাকে দিতাম। কিন্তু পুরনো কিছু বিষয় মিমাংসা না হওয়ায় আমরা জায়গাটি ছাড়তে চাইনি।

পার্শবর্তী দোকানদার মুক্তার মিয়া জানান, হাবিবুর রহমানের জায়গায় তার ভাই ইসহাক মিয়ার ছেলেরা দীর্ঘদিন যাবৎ ব্যবসা করছে তা জানি। কিন্তু সংঘর্ষ কি নিয়ে হয়েছে তা জানিনা।

এবিষয়ে সদর থানা সূত্রে জানা গেছে, এই ঘটনায় দুই পক্ষই এজাহার জমা দিয়েছে। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।