বিজয়নগরে যুব অধিকার পরিষদের আহবায়কের বাড়িতে ছাত্রলীগের হামলার অভিযোগ

২৩ এপ্রিল, ২০২১ : ৪:০৮ অপরাহ্ণ ৫৯৭

তেপান্তর রিপোর্ট: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপজেলায় বাংলাদেশ যুব অধিকার পরিষদের কেন্দ্রীয় আহবায়কের বাড়িতে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা হামলা, ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। হামলায় দুজন আহত হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার সিঙ্গারবিলের কবলাছড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।
আহতরা হলেন মাসুদ হোসাইন (৩১) ও মহসিন হোসাইন (২৮)। তারা বাংলাদেশ যুব অধিকার পরিষদের কেন্দ্রীয় আহবায়ক মো. আতাউল্লাহর বড় ভাই।

আতাউল্লাহ’র পরিবার ও স্থানীয় লোকজন সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার রাতে সাড়ে নয়টা থেকে ১০টার মধ্যে ১৩-১৫টি মোটরসাইকেলে করে ২৫ থেকে ৩০ উপজেলা ছাত্রলীগের নেতাকর্মী ককটেল. বন্দুক, হকিস্টিক ও লাটিশোটা উপজেলার সিঙ্গারবিল ইউনিয়নের কবলাছড়া গ্রামে আতাউল্লাহ’র বাড়িতে হামলা চালায়। হামলার নেতৃত্ব দেন উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মাহবুব হোসাইন। ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা আতাউল্লাহর বাড়ির দুটি ঘরের লেপ-তোষকে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেন ও আসবাব ভাঙচুর করেন। এসময় তারা আতাউল্লাহর দুইভাকে মারধর করেন। তবে ঘটনার সময় আতাউল্লাহ বাড়িতে ছিল না।

আতাউল্লাহ বলেন, বৃহস্পতিবার রাতে ছাত্রলীগের সভাপতি মাহবুবের নেতৃত্বে ১৩ থেকে ১৫টি মোটরসাইকেলে অন্তত ২৫ থেকে ৩০জন ছাত্রলীগের অস্ত্রধারী নেতাকর্মী আমার বাড়িতে হামলা চালানো হয়। তারা আমার দুই ভাইকে মারধর করেন ও বোনকে আটকে রাখেন। তারা পেট্রোল ঢেলে আমার বাড়ির দুটি ঘরের লেপ-তোষক ও কাপড়ে আগুন ধরিয়ে দেয়। যাওয়ার সময় ঘরের চারটি মুঠোফোন ও নগদ টাকা লুট করে নিয়ে যান। তারা আতঙ্ক সৃষ্টি করতে বাড়ির চারপাশে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটান।
বিজয়নগর উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এস এম মাহবুব হোসাইন বলেন, সকালে ফেসবুকের মাধ্যমে ঘটনা জানতে পারি। এ বিষয়ে আমি কিছুই জানি না। তার অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা। উপজেলায় আতাউল্লাহ নামে জামাত-শিবিরের এক নেতা থাকেন বলে শুনেছি।

বিজয়নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আতিকুর রহমান বলেন, রাতে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়েছে। ঘরের এক কোনে তোষক পোড়া দেখতে পেয়েছে পুলিশ। পুলিশ বিষয়টি খতিয়ে দেখছে।

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।