আখাউড়ায় ভিডিও ব্যবসার দ্বন্ধের জেরে ব্যবসায়ী কে জিম্মি, গ্রেফতার ১

৮ জুন, ২০২১ : ২:২৭ অপরাহ্ণ ৩৫০

তেপান্তর রিপোর্ট: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় ভিডিও রেকডিং এডিটিং ব্যবসার জের ধরে ব্যবসার অন্য পার্টনার কে জিম্মি করে তাকে মারধর সহ মুক্তি পণ আদায়ের চেষ্টার অপরাধে মোঃ আমিনুল ইসলাম (২৮) নামে এক ভিডিও ব্যবসায়ী কে গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করেছে জেলা সদর থানা পুলিশ। আমিনুলের সাবেক ব্যবসায়ী পার্টনার ভিডিও ব্যবসায়ী মোঃ কাউছার হোসেন কে ভিডিও ক্যামেরা ও মোটরসাইকেল সহ জিম্মি করার অপরাধে সোমবার(৭জুন) ঘটনাস্থল থেকে গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। গ্রেফতার আমিনুল আখাউড়া উপজেলার উত্তর ইউপির চাঁনপুর গ্রামের নজরুল ইসলামের পুত্র। পৌরসভার দূর্গাপুর গেইটে একটি ষ্টুডিও এবং ভিডিও, রেকডিং, এডিটিং এর ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে।

এঘটনায় জেলা সদর থানায় দায়েরকৃত মামলার অন্য আসামিরা হলেন,অত্র উপজেলার লালবাজার এলাকার বাসিন্দা মৃত কাজী আওয়াল মিয়ার পুত্র মোঃ কাজী শামিম(২৮), জেলা সদর থানার পাগাচং এলাকার মৃত খুরশিদ মিয়ার পুত্র মোঃ বাপ্পি (৩৬), চান্দুপুর মধ্যপাড়ার মোঃ বাহার মিয়ার ছেলে মোঃ জুয়েল (২৫), আটলা গ্রামের মোঃ ফোরকান মিয়ার ছেলে মোঃ রায়হান (৩০),

পুলিশ ও মামলা সূত্রে জানা গেছে, আসামি আমিনুল ইসলাম ও তার ব্যবসায়ী পার্টনার কাউছার হোসেন দীর্ঘ দিন একসাথে বিয়েশাদি ও বিভিন্ন অনুষ্ঠানে ভিডিও এবং ফুল সরবরাহের ব্যবসা করতেন। পৌরসভার দূর্গাপুর গেইটে তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। কিছুদিন আগে কাউছার আলাদা হয়ে ব্যবসা শুরু করেন। এই দ্বন্ধের জেরে আমিনুল ইসলাম ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থেকে ৪ জন সন্ত্রাসী কে ভাড়া করেন। ভিডিও কাজে যাওয়ার পথে কাউছার কে সদর উপজেলা পাগাচং থেকে উপরোক্ত ৪ আসামী কে আটক করে হাত পা বেধে জিম্মি করে ফেলে। জিম্মিকারীরা কাউছার এর মাধ্যমে তার বাড়িতে ফোন দিয়ে একটি মোটরসাইকেল দাবি করে। তখন তার ভাই মোটরসাইকেল নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে কৌশলে এক জিম্মিকারীর সাথে ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে এলাকাবাসী জানতে পারে। তখন ৯৯৯ ফোন দিয়ে পুলিশ কে জানালে অপহরণকারীরা পালিয়ে যায়। তখন পুলিশ তদন্ত করে ঘটনার মূল পরিকল্পনাকারী আমিনুল ইসলাম কে গ্রেফতার করে। বাকি আসামিদের খুজছে পুলিশ ।
এবিষয়ে জানতে চাইলে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ এমরানুল ইসলাম ফোনে বলেন, আসামি আমিনুল ও তার পার্টনারশিপ ব্যবসায়ী কাউছার হোসেনের সাথে পূরৃব শত্রুতার জের ধরে কাউছার কে জিম্মি করে এবং তাকে আটক মারধর করে একটি ভিডিও ক্যামেরা( panasonic H2) সহ মালামাল জব্দ করে রাখে। এঘটনা তদন্ত করে আমিনুল কে গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।