রসূলপুরের পরিবেশ নষ্ট করতে চায় কিছু “উচ্ছৃঙ্খল বখাটে”

২৪ আগস্ট, ২০২১ : ৩:৪৩ অপরাহ্ণ ৭০৫

শেখ রাজেন: অটোরিক্সা-সিএনজি কিংবা মোটর সাইকেল চেপে রাস্তা ধরে সামনে এগোচ্ছেন দু’পাশে গ্রাম। যেতে যেতে চলে এলেন বিশাল জলরাশির বুকে। যেন মিঠা পানির এক সমুদ্র! কোথাও ভেসে আছে কচুরিপানা। কোথাও রাশি রাশি সাদা শাপলা। কিছুক্ষণ পরপর চোখে পড়বে ভেসাল জাল দিয়ে জেলেদের মাছ ধরার দৃশ্য। কখনও পাশ দিয়ে ঢেউ তুলে চলে যেতে পারে মালবাহী ছোটবড় ট্রলার।

জলরাশির দিকে তাকালে পানির রঙ কখনও নীল, কখনও সাদা, কখনও বা কালো মনে হবে। শ্রাবণের আকাশের সঙ্গে রঙ বদলায় জল। ক্ষণে ক্ষণে বৃষ্টি নামে, আবার রোদ ঝকঝক করে ওঠে। কালো মেঘের ছোটবড় ভেলা ও ঝিরিঝিরি বাতাস চেনা পরিবেশের বাইরে ভাসিয়ে নিয়ে যায় কল্পনার জগতে। ব্রাহ্মণনাড়িয়া তিতাস নদীর পাশে রসুলপুর বিলের এই অপার সৌন্দর্য তুলনাহীন। এ যেন অপরূপ জলজ নিসর্গ।

এই সৌন্দর্য উপভোগ করতে অনেকেই ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার এই রসুলপুরে ঘুরতে যান। কিন্তু বেশ কিছুদিন যাবত সেখানকার পরিবেশটা যেন দিন দিন খারাপ এর দিক যাচ্ছে। প্রশাসনিক টহল না থাকাতে সেইখানে কিছু বখাটে ছেলেদের উৎপাত বেড়েছে।

অনেকেই পরিবার নিয়ে সেইখানে ঘুরতে গিয়ে শিকার হচ্ছে নানান অনৈতিক আচরণের, তাই অনেকেই সেখানে যাওয়াটা বিপদজনক মনে করছেন।

রসুলপুরে ঘুরতে যাওয়া কিছু ভুক্তভোগী তেপান্তরকে বলেন আগে এলাকাটার পরিবেশ ভালো ছিল তাই সবাই পরিবারসহ প্রায়ই ঘুরতে যেতাম কিন্তু সেই এলাকার পরিবেশটা আগের মত নেই। মা মেয়ে বোনদের নিয়ে সেখানে ঘুরতে যাওয়াটা এখন খুব ঝুঁকিপূরণ ব্যাপার হয়ে গেছে।

গত ২৩ আগষ্ট জেবিন ইসলাম নামে একজন ফেইসবুকে লিখেন, ঢাকা থেকে আসা কিছু অতিথি নিয়ে তিনি ঘুরতে গিয়েছিলেন রসূলপুরে। সেখানে গিয়ে নাগরদোলাতে উঠার পর কিছু বখাটে খারাপ ভাষায় ইভটিজিং করতে থাকে। সেখানকার টিকিট কাউন্টারের কাছ থেকে ছেলেগুলো ইভটিজিং করছিলো। টিকিট কাউন্টারে অভিযোগ করার পরও প্রতিকার মিলেনি। বখাটে ছেলেগুলোর বয়স ২০/২২ এর বেশি হবেনা।

জেবিন মনে করেন, বিষয়টির উপর প্রশাসনের নজর দেওয়া উচিৎ।

এই ব্যাপারে নবীনগর থানার ওসি আমিনুর রশীদ
তেপান্তরকে বলেন, রসুলপুরের ব্যাপারে আমরা অনেক অভিযোগ শুনেছি, সেখানে ডিবি, র‍্যাব এবং পুলিশের টহল দেয়া হয়। অচিরেই আমরা সেইখানে পুলিশ টহল বাড়ানোর ব্যবস্থা নিব। আর কোন খারাপ কাজের খবর পাওয়া গেলে সাথে সাথে সেটার ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এইদিকে এলাকাবাসীর দাবি, রসুলপুরে অচিরেই পুলিশ চেকপয়েন্ট বসানো হোক।

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।