Tepantor

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় স্কুলে চাঁদা দাবির অভিযোগে পত্রিকার সম্পাদক কে আটক করে পুলিশে সোপর্দ

১৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১ : ৬:০৫ অপরাহ্ণ ১৭৬৬

তেপান্তর রিপোর্ট: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের কাছে চাঁদা চাইতে গিয়ে আলী আযম নামে এক স্থানীয় পত্রিকার সম্পাদক আটক হয়েছেন। এসময় তার সাথে থাকা জাতীয় দৈনিক ভোরের ডাক পত্রিকার আরেক সাংবাদিক আশিকুর রহমান রনি পালিয়ে যায়।

Tepantor

মঙ্গলবার (১৪ সেপ্টেম্বর) সকালে উপজেলার শরীফপুর ইউনিয়নের পূর্ব সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এই ঘটনা ঘটে। আটক আলী আযম ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে প্রকাশিত স্থানীয় সাপ্তাহিক সত্যের দিগন্ত পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক।

শরীফপুর পূর্ব সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. হাবিবুর রহমান বলেন, সকালে স্কুলে শিক্ষকরা যার যার ক্লাশে নিয়মিত কাজ করছিলেন। এসময় আলী আযম ও আশিকুর রহমান রনি নিজেকে সাংবাদিক ও আশুগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পরিচয় দেয়। পরে তারা স্কুলের হাজিরা খাতা ও বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ গোপন নথি দেখতে চান। শিক্ষকরা তা দেখাতে না চাওয়ার আলী আযম ও আশিকুর রহমান রনি শিক্ষকদের উপর ক্ষিপ্ত হন। এক পর্যায়ে শিক্ষকদের গালাগাল শুরু করে আলী আযম ও আশিকুর রহমান রনি। পরে তারা দুজন বিষয়টি নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করবেন বলে জানান। পরে শিক্ষকরা তাদের অপরাধ কি জানতে চাইলে দুজন বিষয়টি সমাধান করার কথা বলেন। কিভাবে সমাধান করতে হবে জানতে চাইলে আলী আযম ও আশিকুর রহমান রনি শিক্ষকদের কাছে ২০ হাজার টাকা চান। শিক্ষকরা কেন টাকা দিবেন এই কথা বলার সাথে সাথে দুজনেই উত্তেজিত হয়ে তাদের আবারো গালাগাল শুরু করেন৷ বিষয়টি দেখতে পেয়ে এলাকাবাসী এগিয়ে আসেন। পরে অবস্থা খারাপ দেখে আশিকুর রহমান রনি পালিয়ে যায়। এসময় এলাকাবাসী আলী আযমকে আটক করে পুলিশের কাছে তুলে দেয়। এই ঘটনায় স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি লাল মিয়া বকসী বাদি হয়ে আলী আযম ও আশিকুর রহমান রনির বিরুদ্ধে আশুগঞ্জ থানায় চাঁদাবাজি ও সরকারি কাজে বাধা দেয়ার মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলেও জানান তিনি।

আশুগঞ্জ থানায় ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আজাদ রহমান বলেন, আলী আযমকে আটক করে থানায় আনা হয়েছে৷ বাদির লিখিত অভিযোগ পেলে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Tepantor

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।