Tepantor

মিমাংসার কথা বলে জামিন নিয়েই মহিলাদের বেধড়ক পিটিয়েছে ওয়ারেন্টের আসামীরা 

১৯ জানুয়ারি, ২০২২ : ৬:৪৮ অপরাহ্ণ ৩২২

তেপান্তর রিপোর্ট: মিমাংসার কথা বলে আদালত থেকে জামিন নিয়েই বাড়িতে গিয়ে বেধড়ক পিটিয়ে চার জনকে হাসপাতালে পাঠিয়েছে ওয়ারেন্টের আসামীরা। আহতদের মধ্যে তিন জন নারী। ১৯ জানুয়ারি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপজেলার গোয়ালনগর গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। আহতরা হলেন, গোয়ালনগর গ্রামের মুসা মিয়ার স্ত্রী মোরশেদা সরকার (২৬), মুসার বোন বীনা আক্তার (২৫) মুসার আরেক বোন হনুফা বেগম (৩১), ও মুসা (৩৫) নিজে। তবে মোরশেদা ও হনুফার অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য তাদের ঢাকায় রের্ফাড করা হয়েছে।

Tepantor

জায়গা জমি নিয়ে বিরুধের জের ধরে এর আগেও কয়েকবার মুসা মিয়ার বাড়িতে দলবল নিয়ে হামলা করেছে মুসার সৎ ভাই মির্জা খান (মিজান) ও ইয়ার খান। পবরবর্তীতে এ বিষয়ে মামলা মোকদ্দমা হয়েছে।

এবিষয়ে আরো পড়ুন…  বিজয়নগরে টাকার জোর ও লাঠির ক্ষমতায় জায়গা দখলের চেষ্টা।

জায়গা জমি ও মারামারির মামলায় বার বার মুসা মিয়ার পক্ষে আদালতের রায় আসায় আরো ক্ষীপ্ত হয় মির্জা খান ও ইয়ার খান। এক পর্যায়ে মির্জা খান ও ইয়ার খানসহ অন্তত ৭ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হয় আদালত থেকে। পরে গত ১৮ জানুয়ারি ওয়ারেন্টের আসামীরা বাদী মুসা মিয়ার সাথে ঘটনার মিমাংসা করে ফেলবেন বলে আদালতের কাছে আকুতি-মিনতি করে জামিন নেয়। কিন্তু জামিন নেওয়ার পর দিন অর্থাৎ ১৯ জানুয়ারি দুপুর আড়াইটার সময় মির্জা খান ও ইয়ার খান ৭/৮ জনের একটি দল নিয়ে মুসা মিয়ার বাড়িতে আবারও হামলা চালায়। এতে করে মুসার স্ত্রী ও দুই বোনের মাথা ভয়ানক ভাবে ফাটিয়ে দেওয়া হয়। এছাড়াও শরীরের বিভিন্ন স্থানে ফুলা জখম করা হয়। বর্তমানে আহতরা সবাই ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে চিকিত়্সাধীন আছেন। তবে ওই মারপিটে অপর পক্ষের দুই জনও আহত হয়েছেন।

এবিষয়ে আরো পড়ুন… বিজয়নগরে জায়গা দখলের জন্য ঘরবাড়িতে হামলা

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, গত কয়েক মাস ধরে চলা এই দ্বন্ধে নিরীহ মুসা মিয়ার বাড়িতে বার বার হামলা চালিয়েছে ইয়ার খান ও মির্জা খান গং। মুসা মিয়ার তিনটি ঘর ভেঙ্গে মাটির সাথে মিশিয়ে দিয়েছে তারা। এলাকায় প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে খুব কম মানুষ আছেন যারা নির্ভয়ে মুখ খুলে। এবং এলাকার বাকি প্রভাবশালীরাও হামলাকারীদের সাথে এক জোট।

এবিষয়ে ভুক্তভোগী মুসা মিয়া বলেন, আদালত আমার পক্ষে রায় দিলেও তারা সেই রায় অমান্য করে আমাদের উপর একের পর এক হামলা চালিয়ে যাচ্ছে। আর তাদের ৭ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা থাকার পরও পুলিশ তাদের গ্রেফতার করেনা। ফলে আদালতের রায় আমার পক্ষে থাকা স্বত্বেও আমি ও আমার পরিবার তাদের হাত থেকে সুরক্ষিত না। অবস্থা দেখে মনে হচ্ছে তারা সকল আইনের উর্ধ্বে।

 

Tepantor

তেপান্তরে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।